রবিবার, ২০ জানুয়ারী ২০১৯, ০৫:৫২ অপরাহ্ন

চট্টগ্রাম বন্দরে এক অন্য রেকর্ড

চট্টগ্রাম বন্দরে এক অন্য রেকর্ড

বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকেই যুগোপযোগী করে তোলা হচ্ছে চট্টগ্রাম বন্দরকে। অবকাঠামো ও কারিগরি উন্নয়নের মাধ্যমে এই বন্দর পাচ্ছে বিশ্বের অন্যতম সেরা ও গতিশীল বন্দরের রূপ। পণ্যজট কমাতে নেয়া হচ্ছে একের পর এক পদক্ষেপ। বন্দরের কার্যক্রমকে আরো জনবান্ধব করতে নিরলস পরিশ্রম করে যাচ্ছেন বন্দরের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।

সম্প্রতি নতুন আনা তিনটি গ্যান্ট্রি ক্রেনের সাহায্যে জেটিতে জাহাজের অবস্থানকাল কমিয়ে কনটেইনার হ্যান্ডলিংয়ে রেকর্ড করেছে চট্টগ্রাম বন্দর।

বুধবার (২১ নভেম্বর) সকালে নিজস্ব ক্রেন ছাড়া (গিয়ারলেস) জাহাজ ‘এমভি ক্যারোলিনা ট্রেডার’র আমদানি-রফতানি পণ্যভর্তি এক হাজার ৫৬৭টি কনটেইনার (বক্স) হ্যান্ডলিংয়ের মধ্য দিয়ে এ রেকর্ড অর্জিত হয়। টিইইউ’এস (২০ ফুট দীর্ঘ হিসেবে) যা দাঁড়ায় দুই হাজার ১৮১ কনটেইনার।

বন্দর সূত্রে জানা গেছে, নিউমুরিং কনটেইনার টার্মিনালের (এনসিটি) ৪ নম্বর জেটিতে স্থাপিত নতুন তিনটি ‘কি গ্যান্ট্রি ক্রেন’ বা কিউজিসি’র সাহায্যে গিয়ারলেস জাহাজে অপারেশন করা হয়।

সোমবার (১৯ নভেম্বর) জাহাজটি জেটিতে আনা হয়। প্রথম ১২ ঘণ্টায় আমদানি পণ্যভর্তি ৭৮২ টিইইউ’স আনলোড করা হয়। এরপর বাকি কনটেইনার আনলোড এবং রফতানি পণ্যভর্তি কনটেইনার লোড করা হয়।

বন্দর সচিব মো. ওমর ফারুক জানান, নতুন তিনটি গ্যান্ট্রি ক্রেনের সাহায্যে ‘ক্যারোলিনা ট্রেডার’ জাহাজটির লোড-আনলোড ৪৮ ঘণ্টায় সম্ভব হয়েছে। এটি চট্টগ্রাম বন্দরের সক্ষমতা বৃদ্ধির প্রতিফলন, বড় অর্জন। যদি কোনো জাহাজের নিজস্ব ক্রেন দিয়ে এসব কনটেইনার হ্যান্ডলিং করতে হতো তবে ৭২ ঘণ্টা সময় লাগত।

শতবর্ষী বাণিজ্য সংগঠন চট্টগ্রাম চেম্বারের সভাপতি মাহবুবুল আলম জানান, ৩টি করে দুই দফায় মোট ছয়টি গ্যান্ট্রি ক্রেন বসলো এনসিটির ৩ এবং ৪ নম্বর জেটিতে। এর মধ্যে বুধবার (২১ নভেম্বর) সকালে ৪৮ ঘণ্টায় একটি গিয়ারলেস জাহাজের ২ হাজার ১৮১ টিইইউ’স কনটেইনার হ্যান্ডলিং সম্ভব হয়েছে তিনটি গ্যান্ট্রি ক্রেন ব্যবহারের কারণেই। বন্দর ব্যবহারকারীদের দাবি ছিল ১০টি গ্যান্ট্রি ক্রেন যুক্ত করা। সরকার উদ্যোগ নিয়েছে। আশাকরি বাকি চারটি গ্যান্ট্রি ক্রেনও যথাসময়ে বন্দরে যুক্ত হবে। তখন ১২ ঘণ্টায়, ৬ ঘণ্টায় একেকটি জাহাজ রিলিজ পাবে।

তিনি বলেন, মেরিটাইম ওয়ার্ল্ডে চট্টগ্রাম বন্দরের তথা বাংলাদেশের ভাবমূর্তি আরও উজ্জ্বল হবে। আগে একেকটি জাহাজের গড় অবস্থানকাল বেড়ে যাওয়ায় হাজার হাজার ডলারের যে ক্ষতিপূরণ দিতে হতো তা থেকে আমদানিকারকরা মুক্তি পাবেন।


©2014 - 2018. RajshahiNews24.Com . All rights reserved.
Design & Developed BY ThemesBazar.Com