বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০১৯, ০৮:৫১ পূর্বাহ্ন

সুবর্ণচরে গণ ধর্ষনের মুল পরিকল্পনাকারী চট্রগ্রামে গ্রেপ্তার

নিজস্ব প্রতিবেদক : নোয়াখালীর সুবর্ণচরে ভোটের রাতে গৃহবধূকে দলবেঁধে ধর্ষণের ঘটনায় ‘মূল পরিকল্পনাকারী’কে আটকের কথা জানিয়েছে পুলিশ। তার নাম হাসান আলী বুলু।

৬০ বছর বয়সী এই ব্যক্তি সুবর্ণচর উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক রুহুল আমিনের ‘প্রধান সহযোগী’ হিসেবে এলাকায় পরিচিত। তার সঙ্গে ধরা পড়েছেন ৩০ বছর বয়সী জসিম উদ্দিন। সুবর্ণচরের চরজুবলী ইউনিয়নের মধ্যম বাগ্যা গ্রামের এই ব্যক্তি পেশায় একজন কলা বিক্রেতা।

নোয়াখালীর পুলিশ সুপার ইলিয়াছ শরীফ জানান, হাসান আলী বুলুর সঙ্গেই ভোটকেন্দ্রে ওই নারীর ঝামেলা হয়েছিল। পরে তিনি ১০ হাজার টাকায় কয়েকজন ইটভাটা শ্রমিককে ভাড়া করে।

এ নিয়ে এই ঘটনায় এখন পর্যন্ত আটক হলেন সাত জন। এদের মধ্যে এজাহারভুক্ত আসামি চার জন। পলাতক আরো পাঁচ জন। নির্দেশদাতা হিসেবে উঠে আসা রুহুল আমিনও আটক হয়েছেন।

নোয়াখালীর পুলিশ সুপার ইলিয়াছ শরীফ জানান, মামলার এজাহারে বুলু বা জসিমের নাম ছিল না। তবে ঘটনার তদন্তে তাদের নাম পাওয়া যায়।

জসিমকে শুক্রবার ভোর সাড়ে ছয়টার দিকে চট্টগ্রামের নাজিরহাট এলাকায় অভিযান চালিয়ে ধরে চরজব্বার থানা পুলিশের একটি দল। আর চট্টগ্রামেরই ডাবলমুরিং থানার পশ্চিম মাদারবাড়ি এলাকা থেকে আটক হন হাসান আলী বুলু।

গত ৩০ ডিসেম্বর ভোটের রাতে বাড়িতে ঢুকে ওই নারীকে ধর্ষণ করা হয়। ভুক্তভোগীর স্বামীর অভিযোগ, তারা ধানের শীষে ভোট দেওয়ায় এই ঘটনার শিকার হয়েছেন। তবে পরে তিনি মামলায় বলেন, পূর্ব শত্রুতার কথা। যদিও জানা যায়, তিনি নিজে নয়, এজাহার লিখে দিয়েছে পুলিশ।

ঘটনাটি জানাজানি হলে ঢাকা থেকে মানবাধিকার কমিশনের তদন্ত দল এবং পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি খন্দকার গোলাম ফারুকও ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। তারা সবাই হাসপাতালে থাকা ওই নারীর সঙ্গে কথা বলেছেন। তাদের কাছে রুহুল আমিনের বিষয়ে অভিযোগ করেন তিনি।

নির্যাতনের শিকার ওই নারী এখন নোয়াখালী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। ডাক্তারি পরীক্ষায় তাকে ধর্ষণের আলামত পাওয়া গেছে। তার শারীরিক অবস্থারও বেশ উন্নতি হয়েছে।


©2014 - 2018. RajshahiNews24.Com . All rights reserved.
Design & Developed BY ThemesBazar.Com