রবিবার, ২৪ মার্চ ২০১৯, ১১:০৩ অপরাহ্ন

সাংসদ নয়,মাঠে নামছি খেলোয়ার হিসেবে

স্পোর্টস ডেক্স : মুশফিকের চিটাগাং ভাইকিংসের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে বিপিএল মিশন শুরু করছে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন রংপুর রাইডার্স। দলটির অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা। যিনি সদ্য সাংসদ নির্বাচিত হয়েছেন। তবে এখন তার সব মনোযোগ ক্রিকেটে, রাজনীতিতে নয়। বিপিএল শুরুর আগে আজ কথা বলেছেন নানা বিষয় নিয়ে। নিচে তা তুলে ধরা হলো।

দল নিয়ে প্রত্যাশা

এবার আমাদের দলটা ভালো, ভারসাম্যপ‚র্ণ। বোলিং সাইডটা একটু ঠিক রাখতে হবে। এখনও সব খেলোয়াড় আসেনি। আগেরবার চ্যাম্পিয়ন হয়েছি এটার একটা প্রত্যাশা তো আছেই কিন্তু আগেরবারের চেয়ে এবারের দল আরও ভালো আমার কাছে মনে হয়।

বিশ্বাস, অতি আত্মবিশ্বাস..?

কোনটাই না। আত্মবিশ্বাস তো থাকবেই হবে খেলার জন্য। তবে অতি আত্মবিশ্বাসের প্রশ্নই আসে না। আর নতুন করে টুর্নামেন্ট শুরু হচ্ছে, নতুন চ্যালেঞ্জ। আত্মবিশ্বাস থাকতে হবে, তবে অতি আত্মবিশ্বান অবশ্যই না।

ডেথ ওভার নিয়ে চিন্তা?

টুর্নামেন্টে রান করতে করতে হয়তো বা একটা সময় খাপ খাওয়াতে পারব। ফরহাদ রেজা আছে, শফিউল আছে, আমি আছি। আরও হয়তো এক দুই জন বেদেশি আসবে তাদের দিয়ে চালাতে হবে। একটা দলের সবগুলো দিক শক্তিশালী করাা কঠিন। ম্যানেজ করতে হবে আরকি।

ব্যাটিংয়ে বিদেশি, বোলিংয়ে স্থানীয়দের উপর ভরসা করতে হবে?

আমাদের দল সেরকমই। তারপরও কিছু অলরাউন্ডার আছে আমাদের দলে। আমি আগেও বললাম, হয়তো সবার জন্যই টুর্নামেন্ট খুব আনন্দের হবে না। কারণ ফরম্যাটটাও টি-টুয়েন্টি। নিজের দিনে যে ভালো করছে তাকেই ভালো করতে হবে। এরকমই খেলা টি-টুয়েন্টি। দেখা যাবে ১২-১৩টা ম্যাচের মধ্যে কেউ ৬টা ম্যাচ ভালো করবে, ৬টা ম্যাচ খারাপ করবে। এসব টুর্নামেন্টে এমনই হবে।

এমপি থেকে ক্রিকেট, ক্রিকেট থেকে এমপি। কতটা কঠিন?

রুপান্তর প্রক্রিয়াটা আসলেই খুব কঠিন। খুব দ্রুত, অত্যন্ত অল্প সময়ের মধ্যে। তবে ম্যানেজ করছি, চেষ্টা করছি।

প্রতিপক্ষ চিটাগং নিয়ে ভাবনা

প্রথম ম্যাচ সবদলের জন্যই খুব গুরুত্বপূর্ণ। এই ফরম্যাটের ক্রিকেটে এক দুইজন ক্রিকেটার ম্যাচ বদলে দেয়। নিদাহাস ট্রফির কথা চিন্তা করেন, মুশফিক একা একটা ম্যাচ জিতিয়েছেন। আপনি খুব ভালো দল নিয়ে টুর্নামেন্ট, বা নির্দিষ্ট ম্যাচ জিতবেন, এটা আশা করা ভুল। ওদের দলও অনেক শক্ত। একই সাথে বলবো, যেই সাতটা দল আছে, হয়তোবা ১৯-২০ আরকি। খুব বড় পার্থক্য পাওয়া খুব কঠিন। আমার কাছে মনে হয়, টুর্নামেন্টে ভালো খেলা হবে।

প্রস্তুতির সময় নিয়ে…

আসলে বিদেশি খেলোয়াড়রা তো সবে আসছে। অনেক দলের এখনো এসে পৌঁছায়নি। তারপরও এক তারিখ থেকে অনেকে প্রস্তুতি শুরু হয়েছে। আমাদের স্থানীয় যারা জাতীয় দলে ছিল তরা সম্প্রতি ওয়েস্ট ইন্ডিজের সাথে খেলেছে। যেহেতু ফরম্যাটটা টি-টুয়েন্টি, তাই হয়তো বলতে পারেন এক সপ্তাহ সময় হলে হয়তো ভালো হত।

বিশেষ প্রত্যাশা.. ?

প্রত্যাশা তো থাকবেই। শুধু অধিনায়ক হিসেবে না, খেলোয়াড় হিসেবেও থাকবে। আর অধিনায়ক থাকলে তো আরও দায়িত্ব থাকে। এটা নিয়েই তো চলছে গত তিন চার বছর।

বিপিএল বিশ্বকাপের জন্য কতটা প্রস্তুতিমূলক?

বিশ্বকাপের জন্য মনে হয় এই টুর্নামেন্টের প্রয়োজনীতা একেবারেই নেই। কারণ প্রথমত ফরম্যাট টি টোয়েন্টি। এটার সাথে ৫০ ওভার মেলানো কঠিন। তার সাথে আপনি যদি কন্ডিশন ধরেন, এখানে এমনি রান কম হয়, ইংল্যান্ডে যেখানে সাড়ে ৩শ, ৩২০, ৩৩০ রান হবে। হয়তো আপনি বলতে পারেন নিউ জিল্যান্ড থেকে আমাদের বিশ্বকাপের প্রস্তুতি শুরু হতে পারে। তবে টি টোয়েন্টিতে যারা ভাল খেলবে তাদের হয়তো ভাল অনুমতি থাকবে।

৫ আসরের ৪ বারের চ্যাম্পিয়ন আপনি। এর রেসিপিটা কি? আপনি কি মনে করেন টি টোয়েন্টিতে বাংলাদেশ আপনাকে মিস করছে?

আসলে প্রত্যেকবারই তো এই প্রেসার নিয়ে টুর্নামেন্ট শুরু করি যে, গতবছর চ্যাম্পিয়ন ছিলাম। ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়নের সবসময়ই আলাদা প্রেসার থাকে। তবে আপনি যে ভাল দিল করে চ্যাম্পিয়ন হবেন এই ফরম্যাটে এই নিশ্চয়তা থাকে না। তাই আমাদের খুব ভালভাবে শুরু করতে হবে। আগের বছর প্রথমে আমরা হেরেছিরাম পরে ঘুরে দাঁড়িয়েছি । তাই ওই মানষিকতা থাকতে হবে। আসলে নির্দিষ্ট কোন রেসিপি নেই।
ও হ্যাঁ, আমার কাছে মনে হয় না। আসলে পৃথিবীতে কারো জন্য কিছু থেমে থাকে না। এটাই হচ্ছে চিরন্তন সত্য।

স্মিথ, ওয়ার্নার ও ডি ভিলিয়ার্সের মতো খেলোয়াড়রা এবার খেলছেন। কি মনে হয় বিপিএলের গ্রহনযোগ্যতা বাড়বে?

আমাদের উইকেটগুলা সেভাবে সাপোর্ট করে না। কারণ মানুষ চায় যে বড় রান দেখতে। ১৮০,১৯০ বা ২০০ রান হলে এবং যখন তা চেজ হবে তখন টুর্নামেন্টের গ্রহনযোগ্যতা অনীবার্য। উইকেট একটা ব্যাপার। চিটাগংয়ে খেলা হলে দেখবেন ব্যাটসম্যান, বোলার সবাই এনজয় করে।ওই চ্যালেঞ্জটা থাকে। তবে এবার কিছু ভালো খেলোয়াড় এসেছে। এবার হয়তো বা টুর্নামেন্টের গ্রাফটা ওপরের দিকে যাবে আশা করছি।

সংসদ সদস্য হয়ে প্রথম কোন টুর্নামেন্টে মাঠে নামছেন। অনুভুতি কেমন?

না, যথারীতি। আগের মতোই। দেখেন, আমি খেলোয়াড় হিসেবেই এখানে পরিচিত এবং মাঠেও নামছি খেলোয়াড় হিসেবে, সংসদ সদস্য হিসেবে না। আশা করি, আামরা সবাই আমাকে সেভাবেই দেখবেন।


©2014 - 2018. RajshahiNews24.Com . All rights reserved.
Design & Developed BY ThemesBazar.Com