রবিবার, ২০ জানুয়ারী ২০১৯, ০৪:৩৩ অপরাহ্ন

দিনাজপুরে বৃদ্ধি পাচ্ছে ঠাণ্ডা জনিত রোগীর সংখ্যা

নিজস্ব প্রতিবেদক : চলতি মাসের শুরু থেকেই ঠাণ্ডার মাত্রা বৃদ্ধি পাওয়ায় দিনাজপুরে ঠাণ্ডা জনিত রোগের প্রাদুর্ভাব বৃদ্ধি পাওয়ায় শিশু ও বৃদ্ধ লোকের ডায়রিয়া, নিউমোনিয়া, সর্দি, শ্বাসকষ্ট রোগের বৃদ্ধি পেয়েছে। ফলে ঠাণ্ডা জনিত রোগের কারণে শিশুসহ বৃদ্ধরা ঠাণ্ডাজনিত নানা রোগে আক্রান্ত হয়ে দিনাজপুর জেনারেল হাসপাতালে ছুটে আসছে।শনিবার সদর হাসপাতালে গিয়ে দেখা যায়, বিশেষ করে শিশুরা ঠাণ্ডা জনিত কারণে ডায়রিয়াসহ নানা রোগে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছে।

দিনাজপুর জেনারেল হাসপাতালের শিশু বিভাগের নার্স ইনচার্জ আনিছা খাতুন জানায়, চলতি মাসে এ পর্যন্ত ১শ’ ৭৪ জন শিশু রোগী ভর্তি হয়েছে। অতিরিক্ত ঠাণ্ডার কারণে শিশুদের সর্দি, নিউমোনিয়া রোগে আক্রান্তরা এখানে চিকিৎসার জন্য আসছেন। প্রতিদিন গড়ে ৩০ থেকে ৩৫ জন নিউমোনিয়া রোগে আক্রান্ত শিশু রোগী ভর্তি হচ্ছে। এছাড়াও সর্দি, শ্বাসকষ্ট রোগে আক্রান্ত রোগীরা ভর্তি হচ্ছে। গত ডিসেম্বরে নিউমোনিয়া রোগে আক্রান্ত হয়ে ২১৬ জন শিশুর চিকিৎসা প্রদান করা হয়েছে।

দিনাজপুর জেনারেল হাসপাতালের ডায়রিয়া বিভাগের নার্স ইনচার্জ সুফিয়া বেগম জানায়, এই ওয়ার্ডে ডায়রিয়া রোগীর সংখ্যা বেশি। অতিরিক্ত ঠাণ্ডার কারণে ডায়রিয়া রোগে আক্রান্ত হয়ে শিশু ও বৃদ্ধ রোগীরা আসছে। চলতি মাসে এ পর্যন্ত ৩৪ জন শিশু রোগী ডায়রিয়ার কারণে ভর্তি হয়েছে। এছাড়া বৃদ্ধ রোগী ডায়রিয়ার কারণে এ পর্যন্ত ১৭ জন ভর্তি হয়েছে এবং চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হচ্ছে। বেডের সংখ্যা কম থাকায় ডায়রিয়ায় আক্রান্ত রোগীদের বারান্দায় বেড বিছিয়ে চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হচ্ছে। গতমাসে ডায়রিয়া রোগে আক্রান্ত হয়েছে ১শ’ ১ জন শিশু ও ৭৬ জন বৃদ্ধ রোগী ভর্তি হয়েছিলো।

সিভিল সার্জন ডা. মো. আব্দুল কুদ্দুস জানান, বিশেষ করে শিশু ও বয়স্করা সর্দি, কাশি, নিউমোনিয়া, ঠাণ্ডা জনিত ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে সদর হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছে। ফলে শীতজনিত নানা রোগে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। চিকিৎসকরা জনসাধারণকে সাবধানে থাকার পরামর্শ দিয়েছেন।

দিনাজপুর আবহাওয়া অফিসের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা তোফাজ্জুর রহমান জানায়, গত কয়েকদিন থেকেই দিনাজপুরের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৬ ডিগ্রী থেকে ৯ ডিগ্রী সেলসিয়াসের মধ্যে উঠানামা করছে। চলতি মাসেই দিনাজপুরের উপর দিয়ে আরো ২/৩ টি শৈত্য প্রবাহ হতে পারে। সেই সময়ে ঠাণ্ডার মাত্রা আরো বৃদ্ধি পেতে পারে ।


©2014 - 2018. RajshahiNews24.Com . All rights reserved.
Design & Developed BY ThemesBazar.Com