বুধবার, ২৭ মার্চ ২০১৯, ০৪:২৭ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
স্বাধীনতা দিবসে দেশবাসীকে জয় উপহার দিলেন ফুটবলাররা নগরীতে নারীসহ অপহরনকারীচক্রের ৩ সদস্য আটক : অপহৃত ব্যাক্তি উদ্ধার রাজশাহী হোমিওপ্যাথিক কলেজের উদ্যোগে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস পালিত চাকুরীচ্যুত সেনা কর্মকর্তা কর্নেল মোঃ শহীদ উদ্দিন খান পর্বঃ ১ বিএনপি ১২ কাউন্সিলরের আওয়ামী লীগে যোগদান বিএনপির মধ্যে সিদ্ধান্ত নেওয়ার সামর্থ্যের অভাব রয়েছে : তথ্যমন্ত্রী পরীক্ষা চলাকালে কোচিং খোলা থাকলে ব্যবস্থা : শিক্ষামন্ত্রী রাজশাহীর গোদাগাড়ীতে পদ্মায় নিখোঁজ-১ রাজশাহীস্থ চাঁপাইনবাবগঞ্জ সমিতির উদ্যোগে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস পালিত শিবগঞ্জে আ.লীগের দু’গ্রুপের বাড়ি-ঘরে হামলা ভাঙচুর, ইউপি চেয়ারম্যান ও আ.লীগ নেতা কারাগারে

আমরন অনশনে রাবির ৫৩ শিক্ষার্থী

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাবি : রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) মনোবিজ্ঞান বিভাগের মাস্টার্সের ফাইনাল পরীক্ষায় ৬৪ জনের মধ্যে মাত্র ১১ জনের পরীক্ষা নিয়েছে পরীক্ষা কমিটি। বিভাগের এক শিক্ষার্থীর বাবা মারা যাওয়ায় সে অংশগ্রহণ করতে পারেনি তাই বাকিরাও পরীক্ষা দেয়নি। এ ঘটনায় পুনরায় পরীক্ষাটি নেয়ার দাবিতে আমরণ অনশনে নেমেছেন শিক্ষার্থীরা। রবিবার দ্বিতীয় দিনের মত বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন ভবনের সামনে অবস্থান নেন তারা। পরীক্ষাটি পুনরায় নিতে বিভাগকে নিদের্শনা দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন উপাচার্য।
আন্দোলনরত অনশনকারী শিক্ষার্থীরা জানান, গত ১৪ মার্চ বিভাগের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী কানিজ ফাতেমার বাবা মারা যান। ফাতেমার মানবিক দিক বিবেচনায় শনিবার পূর্বনির্ধারিত ৫০২ নং কোর্সের পরীক্ষা না নেয়ার অনুরোধ জানায় সহপাঠীরা। পরীক্ষা কমিটির সভাপতি ড. সাবিনা সুলতানাকেও মৌখিকভাবে জানানো হয় বিষয়টি। শিক্ষার্থীদের অনুরোধে কর্ণপাত না করে ৫৩ শিক্ষার্থীকে রেখেই শনিবার সাড়ে ১২টা থেকে সাড়ে ৪টা পর্যন্ত বিভাগের ৩৪১-৪২ নং কক্ষে পরীক্ষার আয়োজন করে বিভাগ কর্তৃপক্ষ। এ ঘটনায় পুনরায় পরীক্ষা নেয়ার দাবি জানিয়ে শনিবার সন্ধ্যায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন ভবনের সামনে অনশনে বসে শিক্ষার্থীরা। রবিবারও সকাল থেকে এই কর্মসূচি পালন করেন তারা।
শিক্ষার্থীরা বলেন, আমরা চাই অভিভাবকতুল্য শিক্ষকরা আমাদের এ বিষয়টি মানবিকভাবে বিবেচনা করবেন। বিভাগ থেকে পুনরায় পরীক্ষা নেয়ার আশ্বাস না দিলে এবং পরবর্তী পরীক্ষাটি স্থগিত না করলে আমরা আমরণ অনশন চালিয়ে যাব।এ বিষয়ে জানতে পরীক্ষা কমিটির সভাপতি ড. সাবিনা সুলতানাকে ফোন করা হলে তিনি ফোন ধরেননি।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক এম আব্দুস সোবহান বলেন, বিষয়টি শুনেছি। আমি বিভাগকে বলেছি যেন কোন শিক্ষার্থী ক্ষতিগ্রস্ত না হয়। বিভাগে এ বিষয়ে আলোচনা করে পুনরায় পরীক্ষাটি নিতে নিদের্শনা দিয়েছি। দুশ্চিন্তা না করে শিক্ষার্থীদের অনশন তুলে নেয়ার পরামর্শ দেন তিনি।


©2014 - 2018. RajshahiNews24.Com . All rights reserved.
Design & Developed BY ThemesBazar.Com