বুধবার, ২২ মে ২০১৯, ০৪:০৩ পূর্বাহ্ন

রাজশাহীর মোহনপুরে ছাত্রকে বৎলকারের অভিযোগে শিক্ষক বরখাস্ত

রাজশাহীর মোহনপুরে ছাত্রকে বৎলকারের অভিযোগে শিক্ষক বরখাস্ত

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজশাহী মোহনপুর উপজেলার মহিষকুন্ডি উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের প্রেক্ষিতে বলৎকার অভিযোগে সহকারি শিক্ষক সাজেদুল কবির সোহেল (ইনডেক্স নং-১০০৩৩১৭) বৎলকার অভিযোগের প্রাথমিক সত্যতা পাওয়ায় তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। গত ৭ এপ্রিল ম্যানেজিং কমিটির সভায় স্বারক নম্বর- মউবি/২০১৯/১১-(১১) তারিখ ৮/৪/১৯ সভার সিন্ধান্ত মোতাবেক সাময়িক বরখাস্তের সিদ্ধান্ত নেয়। ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি কামরুল হাসান মুস্তানের সভাপতিত্বে।

বৎলকারে অভিযুক্ত শিক্ষকের ঘটনার বিরুদ্ধে সহকারী প্রধান শিক্ষক লোকমান আলীকে প্রধান করে তিন সদস্যের একটি তদন্ত টিম গঠন করা হয়েছে। আগামী পনের কর্ম দিবসের মধ্যে কমিটিকে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করতে বলা হয়েছে। সাময়িক বরখান্ত পত্রে আগামী ৭ (সাত) দিনের মধ্যে কেউ ওই শিক্ষকের স্থায়ী ভাবে বরখান্ত করা হইবেনা সেই কারণগুলি খন্ডন করিয়া সন্তোষজনক জবাব প্রধান শিক্ষক মজিবর রহমান মন্ডলের নিকট জমা দেওয়া জন্য বলা হইয়াছে।

 

সাময়িক বরখান্ত হুবুহুব তুলে ধরা হলো :
আপনি ২০১৯ ইং সালের এসএসসি পরীক্ষার্থী আরিফ খান কে একাধিক বার তারিখে বলৎকার করিয়াছেন এবং তাহাকে প্রান নাশের হুমকি প্রদান করিয়াছেন। গত ০৩/০৪/২০১৯ইং তারিখ হইতে অদ্যবদি ছুটি ছাড়া কর্মস্থলে অনুস্থিত আছেন। তাহার অনুলিপি মহাপরিচালক, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর ঢাকাসহ বিভিন্ন দপ্তরে প্রেরণ করা হইয়াছে।

ছাত্র বাবা জানান, বরখান্ত হওয়া সহকারী শিক্ষক সাজেদুল কবির সোহেল এলাকায় প্রভাবশালী হওয়ায় টাকা দেয়ার লোভ দেখায়। এতে বলৎকার শিকার পরিবার রাজি না হওয়ায় নানা রকম ভয়র্ভীতি প্রদর্শন করে শিক্ষকের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ অস্বীকার করার জন্য চাপ প্রযোগ করছে।

উল্লেখ্য, স্কুল ছাত্রকে মোবাইল ফোনে ভিডিও ও অডিও ধারণ করে তাকে ব্লাকমেইল করে একাধিকবার বৎলকারের অভিযোগে শিক্ষার্থীরা ধর্ষক শিক্ষক সাজেদুল কবির সোহেল বিচারের দাবিতে ফুঁসে উঠেছে শিক্ষক শিক্ষার্থী অভিভাবকবৃন্দ মোহনপুর উপজেলা চত্তরে বিক্ষোভ শেষে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সানওয়ার হোসেন, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অধ্যাপক আব্দুস সামাদ, অফিসার ইনর্চাজ(ওসি) আবুল হোসেনের এর নিকট স্বারক লিপি দেন। এসময় স্কুলের সকল শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন। স্বাকলিপি গ্রহনের সময় উপজেলা নিবাহী কর্মকর্তা সানওয়ার হোসেন এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়ে বলেন, শিক্ষকের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

অফিসার ইনর্চাজ (ওসি) আবুল হোসেন বলেন,ধর্ষক শিক্ষক সাজেদুল কবির সোহেল বিরুদ্ধে থানায় মামলা হয়েছে। সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে মামলা তদন্ত করা হচ্ছে। আগামী তিন দিনের মধ্যে ধর্ষক সোহেল গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় বিচার হবে।

মহিষকুন্ডি উচ্চ বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক মজিবর রহমান জানান, আমরা ধর্ষককের দ্রুতবিচার ট্রাইবুন্যালে বিচারের মাধ্যমে বিচারের দাবি করছি। এটা এলাকার সর্বস্তরের মানুষের দাবি।


©2014 - 2018. RajshahiNews24.Com . All rights reserved.
Design & Developed BY ThemesBazar.Com