সোমবার, ১৯ অগাস্ট ২০১৯, ০২:১৪ অপরাহ্ন

কার হাতে উঠছে বঙ্গমাতা গোল্ডকাপের শিরোপা

কার হাতে উঠছে বঙ্গমাতা গোল্ডকাপের শিরোপা

নিজস্ব প্রতিবেদক: এগারো দিনের ময়দানি লড়াই শেষে চলে এসেছে সেই মাহেন্দ্রক্ষণ। যার অপেক্ষায় আজ থেকে ঠিক বারো দিন আগে এ মাঠেই আরব আমিরাতের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে যাত্রা শুরু করেছিল বাংলাদেশের নারী ফুটবলাররা। ফেভারিট হিসেবেই টুর্নামেন্টে যাত্রা শুরু করে ফেভারিটের তকমা নিয়েই ফাইনালে লাওসের বিপক্ষে নামবে মৌসুমী-মারিয়ারা।

 

আজ শুক্রবার সন্ধ্যা ৬টায় বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত বঙ্গমাতা গোল্ডকাপ ফুটবলের ফাইনালে স্বাগতিক বাংলাদেশের মুখোমুখি হবে প্রতিপক্ষকে গোল বন্যায় ভাসিয়ে দেওয়া লাওস। খেলাটি সরাসরি দেখাবে বিটিভি, আরটিভি, নাগরিক টিভিতে আর ধারাভাষ্য শোনা যাবে রেডিও ভূমিতে।

 

ফাইনালে পুরস্কার বিরতণী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে প্রধান অতিথি হিসেবে পাওয়ার জন্য ম্যাচের তারিখ পরিবর্তন করা হলেও বর্তমানে প্রধানমন্ত্রী যুক্তরাজ্য সফরে থাকায় পূর্বের নির্ধারিত সময়েই অনুষ্ঠিত হবে ফাইনাল ম্যাচটি। তবে প্রধান অতিথি হিসেব পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশে সরকারের মহামান্য রাষ্ট্রপতি মো: আবদুল হামিদ।

 

ফেবারিট তকমা নিয়ে বঙ্গমাতা আন্তর্জাতিক গোল্ডকাপে যাত্রা শুরু করে বাংলাদেশ। প্রথম ম্যাচে আরব আমিরাত তারপর কিরগিজস্তান ও সেমিতে মঙ্গোলিয়াকে পরাজিত করে ফাইনালে পা রাখে লাল-সবুজের প্রতিনিধিরা। পুরো টুর্নামেন্টে এক গোল খাওয়া ছাড়া দুর্দান্ত ফুটবল খেলেই শিরোপা লড়াইয়ে দৌড়ে এগিয়ে আছে মৌসুমীরা।

 

অন্যদিকে গ্রুপ পর্ব থেকে সেমিফাইনাল পর্যন্ত দলগুলোকে গোল বন্যায় ভাসিয়েছে লাওস। প্রথম ম্যাচে ৫-০ গোলে মঙ্গোলিয়াকে, দ্বিতীয় ম্যাচে ৬-০ গোলে তাজিকিস্তানকে এবং সেমিফাইনালে ৭-১ গোলে কিরগিজস্তানকে বিধ্বস্ত করে ফাইনালে জায়গা করে নেয় লাওস।

 

আকর্ষণীয় এ ফাইনালে বাংলাদেশের মাথা ব্যাথার কারণ হতে পারে লাওসের বেশ কয়েকজন ফুটবলার। যারা এই আসরে দুর্দান্ত ফুটবলই উপহার দিয়েছেন। বিশেষ করে লাওসের সর্বোচ্চ গোলদাতা কেয়োটা পে, সফরকারী দলের অধিনায়ক আফাতসালা। যিনি বল যোগানের পাশাপাশি আক্রমণভাগেও দুর্দান্ত এই ফুটবলার। আর শেষ জন ডিফেন্ডার সায়সামোনে ইনথাফোনে। রক্ষণ সামলে গোল দেয়াতেও পটু এই ফুটবলার। নিজের নামের পাশে হ্যাটট্রিকসহ চার গোল যোগ করেছেন তিনি।

 

আর এদের বিপক্ষে দলের প্রধান স্ট্রাইকার ইসরাত জাহান স্বপ্নাকে ছাড়াই বড় পরীক্ষা দিতে হবে বাংলাদেশকে। স্বপ্না ছাড়া ছোটন কিভাবে সামলাবেন আক্রমণ ভাগ। কোচ গোলাম রব্বানী ছোটন কৌশলে জানালেন সেটা মাঠেই দেখা যাবে। আগেই কী করে বলবো।

 

মাঠে নামার আগে ক্যামেরাবন্দী দুই দলের অধিনায়ক ও কোচ

 

তবে শুধু পে কিংবা এই তিনজন নয় পুরো লাওসকে নিয়েই বিশেষ পরিকল্পনার কথা জানিয়ে ছোটন বলেন, ফাইনাল ঘিরে সব কোচেরই কিছু পরিকল্পনা থাকে। তার কিছু পরিকল্পনা অবশ্যই বিশেষ। আমারও ফাইনাল ঘিরে তেমন বিশেষ কিছু পরিকল্পনা আছে। যার মধ্যে কেবল পে-ই নয় অনেক কিছুই আছে। লাওস দলে পে ছাড়াও আরো দুইজন ভালো ফুটবলার আছেন একজন অধিনায়ক আফাতসালা, অন্যজন ডিফেন্ডার ইনথাফোনে। তাদের নিয়ে পরিকল্পনাতো থাকবেই। তবে পরিকল্পনাটা কী তা এখন বলছি না।

 

লাওস দল হিসেবে কেমন পরীক্ষা নিতে পারে বাংলাদেশের উত্তরে ছোটন বলেন, এর আগে এএফসি-১৬ নারী চ্যাম্পিয়নশিপে ভিয়েতনামও এভাবেই গোল দিয়ে আসছিল। ওরা আমাদের কাছে হেরেছে। লাওসকে হারাতে সবকিছুই করবে মেয়েরা।

 

লাওসের কোচ ভংমিসি সুবাখাম শিরোপাই তাদের একমাত্র লক্ষ্য জানিয়ে বলেছেন, আমরা ফাইনাল খেলতে মুখিয়ে আছি। স্বাগতিক দলের বিপক্ষে ফাইনাল সব সময়ই কঠিন। কিন্তু আমরা আমাদের লক্ষ্যে পৌঁছাতে চাই। সবার সম্ভাবনা আছে। তারাও ভালো দল। আমার মেয়েরাও ভালো। একটা কঠিন ম্যাচ হবে। তবে দলের ফুটবলাররা জয় পেতে আত্মবিশ্বাসী।

 

বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক মিশরাত জাহান মৌসুমী দৃঢ় কণ্ঠে বলেন, ফাইনালে যেহেতু পৌঁছে গেছি, সেহেতু চাইব দেশের মাটিতেই ট্রফিটা রেখে দিতে। আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টগুলো নিয়মিত খেলছি। কখনও শক্ত ডিফেন্স, আবার কখনও শক্ত আক্রমণভাগের বিপক্ষে খেলতে হচ্ছে আমাদের। এটার সঙ্গে আমরা অভ্যস্ত। আমরা সেরাটা দিয়েই জিততে চাইব।

 

দলের সদস্য হিসেবে খেলতে নামাকেও গুরুত্বপূর্ণ উল্লেখ করে বাংলাদেশ অধিানায়ক বলেন, আমি মাঠে অধিনায়ক ঠিক; কিন্তু আমি অন্যদের মতো দলের একজন সদস্য। আমরা একটি দল হয়ে মাঠে খেলতে চাই। বঙ্গমাতার নামের টুর্নামেন্ট আমরা জিততে চাই। ট্রফি আমাদের কাছেই রেখে দিতে চাই। ফাইনাল ছিল আমাদের প্রাথমিক লক্ষ্য। সেটা পূরণ হয়েছে। এখন আমাদের লক্ষ্য ট্রফি।

 

এদিকে বঙ্গমাতা গোল্ডকাপ ফুটবলের ফাইনালকে ঘিরে স্কুলের শিক্ষার্থীদের জন্য বিশেষ ব্যবস্থা রাখছে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন। স্কুলের শিক্ষার্থীরা বিনা মূল্যে খেলা উপভোগ করতে চাইলে মতিঝিলে বাফুফে ভবনে উপস্থিত হয়ে টিকিট সংগ্রহ করার জন্য অনুরোধ জানানো হয়েছে।তবে ভিআইপিতে বসে দেখতে হলে টিকিটের মূল্য ২০০ টাকা, গ্যালারিতে ৫০ টাকা খরচ করতে হবে সাধারণ দর্শকদের।


©2014 - 2018. RajshahiNews24.Com . All rights reserved.
Design & Developed BY ThemesBazar.Com