সোমবার, ২০ মে ২০১৯, ০৭:৩৭ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :

চিরিরবন্দরে প্রধানমন্ত্রীর উপহার: ঘর পেয়ে খুশি হতদরিদ্র উপকারভোগীরা

চিরিরবন্দরে প্রধানমন্ত্রীর উপহার: ঘর পেয়ে খুশি হতদরিদ্র উপকারভোগীরা

মোঃ আব্দুস সালাম-চিরিরবন্দর,(দিনাজপুর ) থেকে ঃমাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার হিসাবে ঘোষিত সবার জন্য বাসস্থান নিশ্চিত করার লক্ষ্যে “ যার জমি আছে ঘর নাই, তার নিজ জমিতে গৃহ নির্মাণ” আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের ঘর পেয়ে খুশিতে আত্নহারা উপজেলার হতদরিদ্র উপকারভোগীরা । উপজেলা নির্বাহী অফিস সুত্রে জানা যায়, ২০১৭-১৮ ইং অর্থ বছরে চিরিরবন্দর উপজেলার ১২ টি ইউনিয়নে ১৯১ টি পরিবারকে আধাপাকাঁ টিনের বাড়ী তৈরি করে দেওয়ার বরাদ্ধ পান ।

 

 

উপজেলার ১২ টি ইউনিয়নে প্রকৃত অর্থেই যার এক খন্ড জমি আছে ঘর নেই , তার নিজ জমিতে গৃহ নির্মাণ আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের আওতায় হতদরিদ্রদের এসব আধাপাঁকা টিনের বাড়ী তৈরি করে দেওয়া হয়েছে। ১২ টি ইউনিয়নে এখন গ্রামে গ্রামে সাঁজ সাঁজ রব হতদরিদ্র ঘর পাওয়া মানুষদের মাঝে স্বপ্নহারা মানুষের নতুন ঠিকানা মাথা গুজার ঠাঁই হিসাবে ১ টি ঘর ১ টি টয়লেট পাওয়া যা সাধারণ হতদরিদ্র মানুষের কাছে সোনার হরিণ এমন বিচিত্র জীবনে একটু প্রশান্তি খুজেঁ পাওয়া মানুষের অনুভুতি পাহাড়সম।

 

 

যার দয়ায় ছায়া পেয়েছি, তাকে শুধু দোয়া করেই শেষ করা যাবে না, তাঁকে আমরা ভোট (অধিকার) দিয়ে জয় করে আনবো সুন্দর আগামী বাংলাদেশ গড়ার জন্য । প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ থেকে আমাদের অভিভাবক, যাকে আমরা ঘরের চার দেয়ালের যেদিকে তাকাই সেদিকে খুজেঁ পাই। তিনি আমাদের আপনজন এমন কথা গুলো বলেছেন নতুন ঘর পাওয়া হতদরিদ্র উপকারভোগী মানুষেরা। আবার কেউ কেউ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দীর্ঘায়ু কামনা করে দোয়া ও মিলাদ দিয়ে নবনির্মিত গৃহে উঠেছেন।

 

 

সরেজমিনে গিয়ে কথা হয়, ঘরপ্রাপ্ত সুবিধাভোগী পুনট্রি ইউনিয়নের স্বরসতিপুর গ্রামের মৃত: বুধু মোল্ল্যার ছেলে আঃ খালেক (৪৫) আকবর আলী স্ত্রী মরিয়ম (৪০) আউলিয়া পুকুর ইউনিয়নের বড়গ্রামের মৃত: আমির উদ্দীনের ছেলে সফিকুল (৩৬) ইন্দ্রপাড়ার নজরুল ইসলামের ছেলে একরামুল (৩৯) ইসবপুর ইউনিয়নের উওর সুকদেবপুর গ্রামের মৃত: সাদু হোসেনের ছেলে তছির উদ্দীন (৫০) বিন্ন্যাকুড়ি গ্রামের জেয়ারুলের স্ত্রী লাবলী বেগম (৪৪) সকলেই ঘর পেয়ে খুশি হয়েছেন, গৃহহীন পরিবারে চলছে নিরব আনন্দ। প্রধানমন্ত্রীর উপহার ঘর পেয়ে তারা এখন আনন্দিত। ঘর পাওয়া আরো অনেকে বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মায়ের মতো কাজ করেছেন।

 

 

 

নিজের মতো করে পরিবার নিয়ে ঘরে থাকবো এর চেয়ে খুশি আর কি হতে পারে। যাদের মাথা গোজাঁর মতো সামান্য ঠাঁই ছিলো না তারা পেয়েছেন ঘর। জীবনের নিরাপওায় পরিবারের নিরাপওায় যারা ছিল সংশয় তারা এখন ঘরের মালিক। এখন গৃহপ্রাপ্তির নতুন পরিচয়ে বাচঁবে এবং স্বপ্ন দেখবেন তারা। ১০ নং পুনট্রি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ নুর-এ-কামাল বলেন, যার জমি আছে ঘর নেই, হতদরিদ্রদের জন্য সুন্দর একটি পদক্ষেপ গ্রহনের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অসংখ্যা ধন্যবাদ। আজ আমার ইউনিয়নের হতদরিদ্রদের প্রধানমন্ত্রীর উপহার দেয়া ঘর আজ মাথা গোজার ঠাঁই হয়েছে।

 

 

 

এইসব হতদরিদ্ররা কখনো চিন্তাই করতে পারেনি একটি নতুন ঘর পাওয়া, তারা এখন একটি নতুন ঘর পেয়ে সুখে শান্তিতে পরিবার পরিজন নিয়ে বসবাস করছেন। উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ গোলাম রববানী বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার আশ্রয়ন-২ প্রকল্পের অধীনে “যার জমি আছে ঘর নেই, তার নিজ জমিতে গৃহ নির্মাণ” প্রকল্পের ২০১৭-১৮ইং অর্থ বছরে প্রতিটি ইউনিয়নের চেয়ারম্যানদের সাথে নিয়ে আমরা ব্যক্তি নির্বাচন করছি। স্থানীয়দের সহযোগিতা উপজেলার দায়িত্বপ্রাপ্ত অফিসারদের সার্বিক তদরকিতে সুষ্ট ভাবে যারা ঘর পাওয়ার উপযুক্ত তাদেরকেই গৃহ-নির্মাণ করে দেওয়া হয়েছে। ছবি আছে


©2014 - 2018. RajshahiNews24.Com . All rights reserved.
Design & Developed BY ThemesBazar.Com