বৃহস্পতিবার, ২২ অগাস্ট ২০১৯, ০৯:৩২ পূর্বাহ্ন

কুমিল্লায় সড়কজুড়ে ভাড়ার নৈরাজ্য

কুমিল্লায় সড়কজুড়ে ভাড়ার নৈরাজ্য

নিজস্ব প্রতিবেদক: ঈদ আসতে এখনো দিন চারেক বাকি। তবে গত সপ্তাহ খানেক ধরে কুমিল্লার সড়কগুলোতে যাত্রীবাহী বাহনগুলোতে ঈদ উপলক্ষ্যে যেখান থেকে যাত্রী উঠানামা করে তাদেরকে ভাড়া গুণতে হয় দ্বিগুণ।

 

নগর কুমিল্লার প্রধান সড়ক- সংযোগ সড়ক কোথাও বাদ নেই এমন ভাড়ার নৈরাজ্য। সড়কগুলোতে ভাড়ার নৈরাজ্য প্রতিরোধে জেলা-উপজেলা প্রশাসনের কোন পদক্ষেপ না থাকায় জনমনে ক্ষোভ বাড়ছে।

 

কুমিল্লা কান্দিরপাড় থেকে পুলিশ লাইনে প্যাডেল চালিত রিক্সায় করে আসলে কুড়ি টাকা, ব্যাটারিচালিত রিক্সায় করে আসলে ১৫ টাকা। অথচ গত সপ্তাহে প্যাডেল চালিত রিক্সার ভাড়া ছিলো ১৫ টাকা, ব্যাটারি চালিত ১০ টাকা ছিলো। সিএনজি চালিত অটোরিক্সায় উঠলেই ভাড়া ১০ টাকা। আর সন্ধ্যা হলেই ভাড়া বেড়ে তিনগুণ থেকে চারগুণ আদায় করেন চালকরা। পছন্দমতো ভাড়া না হলে বাহনের স্টার্ট দেয় না চালকরা।

 

নগরীর কান্দিরপাড় ট্রাফিক বক্সের পাশে কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে নগরীর মধ্যে ছোট বাহনের ভাড়া তালিকা সম্বলিত সাইনবোর্ড টানিয়ে দিলেও তা মানছেন না চালকরা। সিটি কর্পোরেশনের সাইনবোর্ডে লেখা আছে কান্দিরপাড় থেকে টমসমব্রিজ পর্যন্ত সিএনজি চালিত অটোরিক্সার ভাড়া পাঁচ টাকা, অথচ এখন দ্বিগুন ভাড়ায় টমসমব্রিজ যেতে হয় যাত্রীদের।

 

এছাড়াও কান্দিরপাড় থেকে জাঙ্গালিয়া ও পদুয়ার বাজার বিশ্বরোড এলাকায় সিএনজি চালিত অটোরিক্সার ভাড়া ১৫-২০ টাকা। তবে সিএনজি চালকরা কান্দিরপাড় থেকে শুধু টমসমব্রিজ পর্যন্ত যায় সেক্ষেত্রে প্রতিজন যাত্রী থেকে চালকরা আদায় করে দশ টাকা করে। অথচ সিটি কর্পোরেশন সেখানে ভাড়া নির্ধারণ করেছেন পাঁচ টাকা।

 

এদিকে কান্দিরপাড় থেকে জাঙ্গালিয়া বাসস্ট্যান্ড ও পদুয়ার বাজার যেতে পনের টাকা নির্ধারণ করা হলেও এখন সিএনজি চালকরা কান্দিরপাড় থেকে শুধু টমসমব্রিজ পর্যন্ত যেতে চায়। আবার ভাড়া বেড়ে ২৫ টাকা হয়েছে। তারপর টমসমব্রিজ থেকে আবার সিএনজি চালিত অটোরিক্সায় করে হয়। সেক্ষেত্রে কান্দিরপাড়ের ভাড়াই গুণতে হয় যাত্রীদের।

 

এদিকে কুমিল্লা-বুড়িচং-ব্রাহ্মণপাড়া-মিরপুর এমএ গনি সড়কে সিএনজি অটো রিকশা ভাড়া দ্বিগুণ করা হয়েছে। এতে ওই সড়কে চলাচল করা যাত্রীরা হয়রানির শিকার হচ্ছে।

 

এদিকে সন্ধ্যার পর বিকল্প যানবাহন না থাকায় সিএনজি চালিত অটোরিক্সা করে যাত্রীদের দিতে হয় দ্বিগুন তিনগুণ ভাড়া। যাত্রীর অভিযোগের প্রেক্ষিতে কুমিল্লা শাসনগাছা সিএনজি অটো রিকশা স্ট্যান্ডে ভাড়ার সাইবোর্ড টানায় প্রশাসন। কিন্তু মাস না যেতেই উধাও হয়ে যায় সেই সাইনবোর্ড।

 

কুমিল্লা শাসনগাছা সিএনজি অটো রিকশা স্ট্যান্ডে সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, কুমিল্লা-বুড়িচং-ব্রাহ্মণপাড়া-মিরপুর এমএ গনি সড়কে চলাচলরত সিএনজি অটোরিক্সা চালকরা ঈদের অযুহাতে ভাড়া বৃদ্ধি করেছে। কুমিল্লা থেকে বুড়িচং ভাড়া ৩০ টাকার স্থলে ৪০ টাকা থেকে শুরু করে ধাপে ধাপে তা ৫০-৬০ টাকা করে নেয়া হয়। কুমিল্লা থেকে ব্রাহ্মণপাড়া ভাড়া ৫০ টাকা স্থলে ৬০ টাকা থেকে শুরু করে ধাপে ধাপে তা ৮০-৯০ টাকা পর্যন্ত নেয়া হচ্ছে।

 

কুমিল্লা থেকে বুড়িচংয়ে সিএনজি অটো রিকশা যোগে আসা রফিক নামে এক যাত্রী জানান, সাধারণ সময়ে দিনের বেলা কুমিল্লা থেকে বুড়িচংয়ের ভাড়া ৩০ টাকা। কিন্তু ঈদের অজুহাত দেখিয়ে তা ৫০ টাকা রাখা হয়েছে। এছাড়া সন্ধ্যা হলেই ৩০টাকার ভাড়া দিতে হয় ৬০ থেকে ৭০ টাকা পর্যন্ত।

 

বিকল্প ব্যবস্থা না থাকায় বাধ্য হয়েই ভাড়া দেই। তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, বাংলাদেশে আর কোন সড়কে এত বেশী ভাড়া আদায় করা হয় না, যা শাসনগাছা থেকে বুড়িচং-ব্রাহ্মণপাড়া টু মিরপুর সড়কে দিতে হয়।

 

সন্ধ্যার পরে শাসনগাছা থেকে তিন কিলোমিটার দূরে পালপাড়া, পাঁচ কিলোমিটার দূরে কালখড়পাড় এবং ছয় কিলোমিটার ভরাসার বাজারে যেতে হলে ৩০ টাকা ভাড়া গুণতে হয় যাত্রীদের।

 

এ বিষয়ে বুড়িচং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইমরুল হাসান জানান, ভাড়া বেশি নেয়ার অভিযোগে কয়েকবার অভিযান চালিয়ে চালকদের জরিমানা করেছি। ঈদে কোন প্রকার ভাড়া বৃদ্ধির অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

এদিকে ঈদ উপলক্ষে নগরীতে ভাড়ার নৈরাজ্যর বিষয়ে সিটি কর্পোরেশনের কোন পদক্ষেপ আছে কিনা এ বিষয়ে সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী অনুপম বড়–য়া জানান, আমরা আসলে বিক্ষিপ্ত কিছু অভিযোগ পেলেও সুনির্দিষ্ট অভিযোগ পাচ্ছি না। তবে আমরা জেলা প্রশাসন, জেলা বাস-মালিক কিংবা সংশ্লিষ্ট সংগঠনের প্রতিনিধিদের সাথে সমন্বয় করে অচিরেই ভাড়ার নৈরাজ্যর বিরুদ্ধে অভিযান করবো।


©2014 - 2018. RajshahiNews24.Com . All rights reserved.
Design & Developed BY ThemesBazar.Com