মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর ২০১৯, ১১:২৪ অপরাহ্ন

শিবগঞ্জ সীমান্তে ফের বিএসএফের গুলিতে ২ রাখাল নিহত

শিবগঞ্জ সীমান্তে ফের বিএসএফের গুলিতে ২ রাখাল নিহত

শিবগঞ্জ (চাঁপাইনবাবগঞ্জ) প্রতিনিধি: চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ সীমান্তে চারদিনের মাথায় ফের বিএসএফের গুলিতে দুই রাখাল নিহত হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। বৃহস্পতিবার ভোর রাতে উপজেলার ওয়াহেদপুর সীমান্তে দিয়ে গরু নিয়ে ফেরার পথে এ ঘটনা ঘটে।

 

 

নিহত রাখালরা হলেন- উপজেলার দূর্লভপুর ইউনিয়নের মনোহরপুর ডাইস্যাপাড়ার মৃত সাইফুদ্দিনের ছেলে সাদ্দাম হোসেন ওরফে পটল (২৫) ও একই ইউনিয়নের দোভাগী গ্রামের আসাদুল ইসলামের ছেলে রয়েল (২৫)। স্থানীয়রা জানায়, বুধবার রাত ১১টার দিকে রয়েল ও সাদ্দামসহ কয়েকজন গরুর রাখাল চোরাইপথে গরু আনার জন্য ওয়াহেদপুর সীমান্ত এলাকার ১৬/৫ এস নম্বর পিলার এলাকা দিয়ে অবৈধভাবে ভারতে প্রবেশ করে।

 

 

 

পরে গরু নিয়ে ফেরার পথে নূরপুর ক্যাম্পের বিএসএফ সদস্যরা টের পেয়ে গুলি ছুঁড়লে রয়েল ও সাদ্দাম ঘটনাস্থলেই নিহত হন। পরে তাদের সঙ্গীরা সাদ্দামের মরদেহ নিয়ে বাংলাদেশে পালিয়ে আসে। সাদ্দামের চাচাতো ভাই হাবিব জানান, মরদেহ নিজ বাড়িতে আনার পর মনোহরপুর বিওপির সদস্যরা মরদেহ নিয়ে গেলেও পরে আবার ফেরত দেয়। অল্প সময়ের মধ্যেই মরদেহ দাফন সম্পন্ন হবে। তবে রয়েলের মরদেহ ঠিক কোথায় রয়েছে! তার আত্মীয়রা কিছু বলতে না পারায় জানা যায়নি। দূর্লভপুর ইউপি চেয়ারম্যান অধ্যাপক আবদুর রাজিব রাজু ওই দুই রাখাল নিহতের বিষয়টি নিশ্চিত করলেও রয়েলের মরদেহ কোথায় কিভাবে আছে তা জানাতে পারেননি।

 

 

 

চাঁপাইনবাবগঞ্জ ৫৩ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্ণেল মাহবুবুর রহমান খাঁন জানান, বুধবার রাতে রয়েল ও সাদ্দাম ওরফে পটলসহ আরো কয়েকজনের একটি দল আন্তর্জাতিক সীমান্ত পিলার ১৬ এর সাব-পিলার দিয়ে ভারতে গরু আনতে যায়। বৃহস্পতিবার ভোর রাতে গরু নিয়ে ফেরার পথেই ভারতের নূরপুর ক্যাম্পের বিএসএফ সদস্যরা তাদের লক্ষ্য করে গুলি ছুঁড়লে ঘটনাস্থলেই তারা মারা যান। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। এদিকে রয়েলের মরদেহ ভারতীয় ভূ-খন্ডে পড়ে রয়েছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা। প্রসঙ্গত, এ ঘটনার মাত্র চারদিন আগে উপজেলার কিরণগঞ্জ সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে দুলাল (২০) নামে এক বাংলাদেশি নাগরিক নিহত হন।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

©2014 - 2019. RajshahiNews24.Com . All rights reserved.
Design & Developed BY ThemesBazar.Com