মঙ্গলবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৮, ০৬:১৬ পূর্বাহ্ন

দলীয় মনোনয়ন না পাওয়ায় নওগাঁ-৬ আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী আনোয়ার হোসেন হেলাল

দলীয় মনোনয়ন না পাওয়ায় নওগাঁ-৬ আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী আনোয়ার হোসেন হেলাল

নওগাঁ প্রতিনিধি: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন খুবই আসন্ন। বর্তমানে চলছে এই নির্বাচনের শেষ সময়ের জোর প্রস্তুতি। নওগাঁর ৬টি সংসদীয় আসনের মধ্যে নওগাঁ-৬ (আত্রাই-রাণীনগর) আসনটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ন। কারণ এক সময় এই আসন ছিলো সর্বহারা ও জেএমবিদের (বাংলাভাই) দখলে। জবাইকরা মানুষের তাজা রক্তে রঞ্জিত ছিলো এই আসনের মেঠোপথ।

এছাড়াও এখানে রয়েছে বিশ্ব কবির স্মৃতিবিজড়িত পতিসরের কুঠিবাড়ি ও মহাত্মা গান্ধীর স্মৃতি বিজড়িত গান্ধী আশ্রম। তাই আসন্ন নির্বাচনে সম্ভাব্য মনোনয়নপ্রত্যাশী প্রার্থীদের মধ্যে দল থেকে যারা মনোনয়ন পাননি তাদের মধ্যে অনেকে জনপ্রিয়তার ভিত্তিতে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। এই আসনে এই দুই প্রার্থীর মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে বলে মনে করছেন সাধারন ভোটাররা।

নওগাঁ-৬ (আত্রাই-রাণীনগর) আসনে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলীয় ভাবে ইসরাফিল আলমকে মনোনীত করা হয়েছে। এ আসন থেকে আরো যারা মনোনয়নের জন্য দৌড়াঝাঁপ করেছিলেন তারাও এখন ভেঙে পড়েছেন। তবে ইসরাফিল আলমের বিপক্ষে হেভিওয়েট স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন রাণীনগর উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন হেলাল। এ আসনে এ দুই হেভিওয়েট প্রার্থীর মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে বলে মনে করছেন তৃনমূল নেতাকর্মীরা।

স্বতন্ত্রী প্রার্থী আনোয়ার হোসেন হেলাল বলেন, আমি আওয়ামীলীগ পরিবারের সন্তান। এই উপজেলায় আ’লীগের যখন ক্রান্তিকাল ছিলো তখন আমার পরিবারই শক্ত হাতে এই দলকে ধরে রেখেছিলো। এখানে আ’লীগ বলতে আমাদের পরিবারটিই ছিলো মুখ্য। আ’লীগের পাশে সারা জীবন ছিলাম এখনো আছি। ২০০৮ সালে আমরা যারা ইসরাফিল আলমকে এমপি করেছিলাম তাদের মধ্যে বর্তমানে ৯৮ শতাংক মানুষই আর তাকে ভোট দিবে না। তার জনবিচ্ছিন্ন রাজনীতিতে মানুষরা ক্ষিপ্ত। দখলবাজী, টেন্ডারবাজী, লুটপাট এবং মানুষ খুনসহ এলাকাবাসী এখন তার কাছে জিম্মী হয়ে আছে। এসব কারণে জনগণ তাকে আর চায় না।

তিনি আরো বলেন, এ আসন থেকে আমরা যে কয়জন প্রার্থী ছিলাম তাদের দাবী ছিল ইসরাফিল ছাড়া অন্য যে কাউকে মনোনয়ন দিলে আমরা নৌকার পক্ষে কাজ করব। জন জরিপ ও আমলনামার ভিত্তিতে মনোনয়ন দেয়ার কথা ছিল। কিন্তু তার উল্টোটা করা হয়েছে। এই আসনের মানুষরা তার সন্ত্রাসী শাসন থেকে মুক্তি চায়। আমি বিশ্বাস করি আগামী নির্বাচনে ইসরাফিল আলম এ আসন থেকে ১৫ হাজার ভোটও পাবে না। আর এই আসনের মানুষকে তার অত্যাচার-নিপিড়ন থেকে মুক্ত করার লক্ষে আমি দলীয় মনোনয়ন না পেয়ে জনগনের চাওয়ার প্রেক্ষিতে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি এবং মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছি। আমি আশাবাদি নির্বাচন যদি সুষ্ঠ, সুন্দর, অবাদ ও নিরপেক্ষ হয় তাহলে কোন সন্ত্রাসী কর্মকান্ডই আমার বিজয়কে রুখতে পারবে না বলে আমি শতভাগ আশাবাদি।

রাণীনগর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক মফিজ উদ্দিন বলেন, আনোয়ার হোসেন হেলাল দীর্ঘদিন থেকে আ’লীগ থেকে বহিস্কৃত এক নেতা। আমরা নৌকার পক্ষে কাজ করব এবং বিজয়ী করব। নৌকার বাহিরে আমরা কাউকে মূল্যায়ন করব না।


©2014 - 2018. RajshahiNews24.Com . All rights reserved.
Design & Developed BY ThemesBazar.Com