মঙ্গলবার, ১৮ ডিসেম্বর ২০১৮, ০৪:২৪ অপরাহ্ন

ইভিএমের প্রতি কেন্দ্রে ৩ সেনাসদস্য

নিউজ ডেক্স :: খুলনা-২ আসনে (সদর-সোনাডাঙ্গা) ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) পরিচালনায় প্রতিটি কেন্দ্রে তিনজন করে প্রশিক্ষিত সেনাসদস্য দায়িত্ব পালন করবেন। তাই সংশয়ের কিছু নেই। ইভিএম-এ সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষভাবে নির্বাচন সম্পন্নের সকল প্রস্তুতি এগিয়ে নেয়া হচ্ছে। দাপ্তরিকপত্র না পেলেও মৌখিকভাবে এমনি তথ্য জানতে পেরেছেন বলে’ জানিয়েছেন খুলনা রিটার্নিং অফিসার ও জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেন।শনিবার বেলা ১১টায় জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় কালে তিনি এসব কথা বলেন।

সাংবাদিকদের প্রশ্নোত্তরে রিটার্নিং কর্মকর্তা বলেন, ‘খুলনায় সুষ্ঠু নির্বাচনের পরিবেশ বিরাজ করছে। ভোটারদের মধ্যে উৎসব মুখরতা বিরাজমান। খুলনার কোথাও এখনও পর্যন্ত অপ্রীতিকর কোন ঘটনাই ঘটেনি।

অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের স্বার্থে সকলের সহযোগিতা কামনা করে তিনি আরও বলেন, ইভিএম সম্পর্কে প্রতিটি এলাকায় সচেতনতামূলক প্রচারণা চলছে। বাকি সময়ের মধ্যে আরও প্রচারণা চালানো হবে।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে খুলনা-২ আসনে ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম)এর মাধ্যমে ভোটগ্রহণ করা হবে। এ বিষয়ে জনগণকে সচেতন করতে শনিবার থেকে খুলনা শহরে ইভিএম প্রদর্শনী শুরু হয়েছে।

প্রসঙ্গত, সারাদেশে ৬টি আসনের মধ্যে খুলনা-২ আসনে ১৫৭টি কেন্দ্রে আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দুই লাখ ৯৪ হাজার ৮৩ জন ভোটার ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। এছাড়া খুলনার ছয়টি আসনে ৭৮৫ কেন্দ্রে মোট ভোটার ১৮ লাখ ৬৫৬ জন।

এদিকে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ব্যবহার হবে এমন ভোটকক্ষগুলোতে সর্বোচ্চ সাড়ে ৪০০ ভোটার রাখার নির্দেশনা দিয়ে নির্বাচন কমিশনের মাঠপর্যায়ে চিঠি দেয়া হয়েছে। এ জন্য প্রয়োজনে ভোটকেন্দ্রের গেজেট সংশোধন করার কথা জানানো হয়েছে ওই চিঠিতে। বৃহস্পতিবার নির্বাচন কমিশন সচিবালয় থেকে মাঠপর্যায়ে পাঠানো চিঠিতে এ নির্দেশনা দেয়া হয়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ইসির কয়েকজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা জানান, গড়ে ২ হাজার ৫০০ ভোটারের জন্য একটি ভোটকেন্দ্র এবং গড়ে ৬০০ পুরুষের জন্য একটি ও ৫০০ নারী ভোটারের জন্য একটি ভোটকক্ষ রাখা হয়েছে। নতুন এ নির্দেশনার ফলে প্রতিটি ভোটকক্ষে ৪৫০ জন ভোটারের জন্য একটি ভোটকক্ষ নির্ধারণ করতে হবে। এতে অতিরিক্ত ভোটকক্ষের প্রয়োজন হবে।

এদিকে ইসির চিঠিতে বলা হয়, ইভিএমের জন্য নির্ধারিত ছয় (ঢাকা-৬, ঢাকা-১৩, রংপুর-৩, খুলনা-২, সাতক্ষীরা-২ ও চট্টগ্রাম-৯) আসনে সুষ্ঠুভাবে ভোটগ্রহণের লক্ষে কক্ষপ্রতি ভোটার বিন্যাস ৪০০ থেকে ৪৫০ এর মধ্যে সীমাবদ্ধ রাখতে হবে।

ভোটকেন্দ্রের গেজেট ভোটকক্ষের সংখ্যায় ও প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রে অস্থায়ী কক্ষের সংখ্যায় সংশোধনের প্রস্তাব পাঠানো প্রয়োজন। অপরদিকে জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন অনুবিভাগের উপপরিচালক মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম স্বাক্ষরিত আরেক চিঠিতে বলা হয়, ছয় আসনে ৮৪৫টি ভোটকেন্দ্র এবং ৫ হাজার ৫১টি ভোটকক্ষ থাকবে। ৫ শতাংশ হারে অতিরিক্তসহ এতে মোট ৮৮৭জন প্রিসাইডিং অফিসার, ৫ হাজার ৩০৪ জন সহকারী প্রিসাইডিং অফিসার এবং ১০ হাজার ৬০৮ জন পোলিং অফিসার থাকবেন।

এ লক্ষ্যে আসন ছয়টির ভোটগ্রহণ কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ ও প্রশিক্ষক প্রশিক্ষণের আয়োজন করা প্রয়োজন।


©2014 - 2018. RajshahiNews24.Com . All rights reserved.
Design & Developed BY ThemesBazar.Com