বুধবার, ২০ নভেম্বর ২০১৯, ০২:৫৯ পূর্বাহ্ন

ফারুক চৌধুরীকে যুবলীগ চেয়ারম্যানের পদ থেকে অব্যাহতি

ফারুক চৌধুরীকে যুবলীগ চেয়ারম্যানের পদ থেকে অব্যাহতি

জাতীয় ডেস্ক: ফারুক চৌধুরীকে যুবলীগ চেয়ারম্যানের পদ থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। রোববার গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে যুবলীগ নেতাদের বৈঠকে এসব সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

ওই বৈঠকে প্রেসিডিয়াম সদস্য চয়ন ইসলামকে আহ্বায়ক ও সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশীদকে সদস্য সচিব করে গঠন করা হয়েছে ২৩ নভেম্বর অনুষ্ঠেয় সংগঠনের সপ্তম জাতীয় কংগ্রেসের প্রস্তুতি কমিটি।

এছাড়া যুবলীগের নেতৃত্ব দেওয়ার ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ বয়সসীমা ৫৫ বছর বেধে দেয়া হয়েছে।বিকেলে সংগঠনের প্রেসিডিয়াম সদস্য, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও সাংগঠনিক সম্পাদকদের নিয়ে বৈঠকে বসেন প্রধানমন্ত্রী।

এদিন গণভবনে ঢোকার সুযোগ পাননি সংগঠনের চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরী, প্রেসিডিয়াম সদস্য শেখ ফজলুর রহমান মারুফ, নুরুন্নবী চৌধুরী শাওন এমপি এবং আতিউর রহমান দিপু।

বৈঠক শেষে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের সাংবাদিকদের জানান, বৈঠকে ওমর ফারুক চৌধুরীকে যুবলীগের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। করা হয়েছে ২৩ নভেম্বর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে অনুষ্ঠেয় সংগঠনের কংগ্রেস আয়োজনে একটি প্রস্তুতি কমিটিও। যেখানে চয়ন ইসলামকে আহ্বায়ক ও হারুনুর রশীদকে সদস্য সচিব করা হয়েছে।

সংগঠনের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সব সদস্য প্রস্তুতি কমিটির সদস্য হিসেবে থাকবেন। সংগঠনের আগামী নেতৃত্ব নির্ধারণের ক্ষেত্রে বয়সসীমা ৫৫ বছর বেধে দেওয়া হয়েছে বলেও জানান তিনি।

এক প্রশ্নের জবাবে কাদের বলেন, ওমর ফারুক চৌধুরীকে অব্যাহতি দেওয়া হলেও এখন পর্যন্ত কাউকে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান করা হয়নি। এ বিষয়ে বৈঠকে কোনো সিদ্ধান্ত আসেনি।

বৈঠকে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক, আবদুর রহমান, আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিমসহ দলের কয়েকজন কেন্দ্রীয় নেতা উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠকে যুবলীগের পক্ষ থেকে উপস্থিত থাকার সুযোগ পেয়েছেন- সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশীদ, প্রেসিডিয়াম সদস্য শেখ শামসুল আবেদীন, চয়ন ইসলাম, ড. আহমদ আল কবির, অ্যাডভোকেট সাইদুর রহমান শহিদ, আলতাফ হোসেন বাচ্চু, জাহাঙ্গীর কবির রানা, সিরাজুল ইসলাম মোল্লা প্রমুখ।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে ১৮ সেপ্টেম্বর ক্যাসিনোবিরোধী অভিযান শুরুর পর থেকেই পদবাণিজ্য ও দুর্নীতির মাধ্যমে বিপুল সম্পদ অর্জনের অভিযোগে অভিযুক্ত ওমর ফারুক চৌধুরী সমালোচনার মুখে পড়েন।

প্রভাবশালী এই যুবলীগ নেতার ব্যাংক হিসাব তলবের পাশাপাশি তার বিদেশযাত্রায় নিষেধাজ্ঞাও আরোপ করা হয়। এরপর থেকে তিনি অনেকটাই লোকচক্ষুর অন্তরালে চলে যান। চার সপ্তাহ ধরেই আসছেন না সংগঠনের কার্যালয়েও।

এর আগে গত ১১ অক্টোবর যুবলীগ চেয়ারম্যানকে ছাড়াই বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে জরুরি বৈঠক করেছিলেন সংগঠনটির প্রেসিডিয়াম সদস্যরা। সেখানে ওমর ফারুক চৌধুরীর ‘ক্যাসিয়ার’ হিসেবে পরিচিত সংগঠনের দপ্তর সম্পাদক কাজী আনিসুর রহমান আনিসকে বহিষ্কার করা হয়।

একই সঙ্গে প্রেসিডিয়ামের অনেক সদস্যই সংগঠনের চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরীর বিরুদ্ধে পদবাণিজ্যসহ ক্যাসিনো, দরপত্র ও চাঁদাবাজির কমিশন পেয়ে বিপুল অর্থবিত্তের মালিক হওয়ার অভিযোগ তুলে ধরেন। এই অবস্থায় কাউকে ‘ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান’ করার দাবিও ওঠে বৈঠকে।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

©2014 - 2019. RajshahiNews24.Com . All rights reserved.
Design & Developed BY ThemesBazar.Com