বুধবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৮, ০৯:০৩ অপরাহ্ন

যুক্তরাষ্ট্রে ট্রাম্পের মদদে ইসলাম ও মুসলিম বিরোধী মনোভাব সৃস্টি হচ্ছে

আন্তর্জাতিক ডেক্স :ওয়াশিংটন: যুক্তরাষ্ট্রের বেশিরভাগ অমুসলিম নাগরিক মনে করেন ইসলাম যুক্তরাষ্ট্রের মূল্যবোধের সাথে সামঞ্জস্যহীন। সম্প্রতি ‘New America foundation and the American Muslim Institution’ নামক একটি সংস্থার জরিপে এই তথ্য উঠে আসে।

চলতি মাসের ১ তারিখ বৃহস্পতিবার সংস্থাটির পরিচালিত এই জরিপের ফলাফল প্রকাশ করা হয়। তাতে দেখা যায়- ৫৬ শতাংশ আমেরিকান মনে করেন ইসলাম যুক্তরাষ্ট্রের মূল্যবোধের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ অন্যদিকে ৪২ শতাংশ এর বিপরীতটা মনে করেন।

৬০ শতাংশের বিশ্বাস যুক্তরাষ্ট্রের মুসলিমগণ অন্যান্য আমেরিকানদের মতই দেশপ্রেমিক আর ৩৮ শতাংশ নাগরিক মনে করেন যুক্তরাষ্ট্রের মুসলিমগণ মোটেও দেশপ্রেমিক নন।

‘New America foundation and the American Muslim Institution’ সংস্থাটির পরিচালিত জরীপে উঠে এসেছে যে, ৭৪ শতাংশ আমেরিকান মনে করেন যে, যুক্তরাষ্ট্রে মুসলিমদের বিরুদ্ধে ধর্মান্ধতা ব্যাপকভাবে কাজ করে। অন্যদিকে ৫৬ শতাংশ মত দিয়েছেন যে, তারা মুসলিম সমাজের মধ্যে গড়ে উঠা ‘চরমপন্থা’ নিয়ে উদ্বিগ্ন।

জরিপে আরো তথ্য উঠে আসে যে, রিপাবলিকান নামক রাজনৈতিক দলের সমর্থকগণের বেশিরভাগই যুক্তরাষ্ট্রের মুসলিম এবং ইসলাম সম্পর্কে নেতিবাচক ধারণা পোষণ করে। রিপাবলিকানদের ৭১ শতাংশ বলেছেন, তারা মনে করেন ইসলাম ধর্ম যুক্তরাষ্ট্রের মূল্যবোধ বিরোধী, যদি তাদের নিকটবর্তী কোনো স্থানে মসজিদ নির্মিত হয় তবে তারা এতে করে উদ্বিগ্ন হয়ে উঠেন বলে ৫৬ শতাংশ রিপাবলিকান স্বীকার করেছেন।

তবে কিছু রিপাবলিকান উপরোক্ত ধারণার বিরোধী এবং সাম্প্রতিক যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যবর্তী নির্বাচনে রিপাবলিকান দল থেকে অন্তত ১০০ জন মুসলিম প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন।

‘New America foundation and the American Muslim Institution’ এর গবেষক এবং এই জরিপের অন্যতম লেখক রবার্ট মেকেনজিই বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের মুসলিম বিরোধী মনোভাব গড়ে উঠার পেছনে অনেকগুলো কারণ কাজ করে এবং এগুলো শুধুমাত্র রাজনৈতিক অধিকারের ক্ষেত্রে সীমাবদ্ধ নয়।

তিনি বলেন, ‘হিলারি ক্লিনটন যখন চরমপন্থা নিয়ে কথা বলেন তখন মুসলিমদের কথা প্রথমেই উল্লেখ করেন। আমি জানি তিনি মুসলিমদেরকে অতোটা খারাপভাবে চিত্রায়িত করতে চান না কিন্তু যদি মুসলিমদের কথা শুরুতেই চলে আসে তখন যুক্তরাষ্ট্রের স্থানীয় জনগোষ্ঠীর নিকটে মুসলিমদের সম্পর্কে কি বার্তা পৌঁছে?’

ঘৃণার উত্থান

রাবি আহমেদ নামে যুক্তরাষ্ট্রের মুসলিম গণমাধ্যমগুলোর একজন বিশেষজ্ঞ আল-জাজিরাকে বলেন, ‘আমি মনে করি ইসলামভীতি শুধুমাত্র মুসলিমদের জন্য কোনো সমস্যা নয় এটি পুরো যুক্তরাষ্ট্রের জন্য একটি সমস্যা। সুতরাং সমাজের সকল স্তরেই সচেতনতা গড়ে তুলতে হবে।’

তবে রাবি আহমেদ একথা স্বীকার করে বলেন যে, যুক্তরাষ্ট্রের মুসলিমগণ সেখানকার অন্যান্য সামাজিক কর্মকাণ্ডে খুব কমই অংশগ্রহণ করেন। তিনি যুক্তরাষ্ট্রের অন্যান্য সমাজের মানুষদের সাথে দূরত্ব কমিয়ে আনার জন্য এবং নেতিবাচক ধারণার অবসান ঘটানোর জন্য স্থানীয় মানুষদের সামাজিক অনুষ্ঠানসমূহে অংশগ্রহণের জন্য মুসলিমদের পরামর্শ দেন।

তিনি বলেন, ‘মুসলিমদের যেমন তাদের সম্পর্কে নেতিবাচক ধারণাগুলোকে ইতিবাচক ধারণায় পরিবর্তন করার দায়িত্ব রয়েছে ঠিক তেমনি করে অন্য ধর্মাবলম্বীদেরও এক্ষেত্রে এগিয়ে আসা প্রয়োজন। সুতরাং যখন তারা দেখবে তাদের ধর্মগুরু ইসলাম সম্পর্কে কোনো ভুল বার্তা ছাড়াচ্ছেন তখন তাদের উচিত তাকে থামিয়ে দেয়া।’

‘New America foundation and the American Muslim Institution’ নামে সংস্থাটি যুক্তরাষ্ট্রের রাজনীতি এবং গণমাধ্যমগুলোতে ব্যাপকহারে ইসলামভীতি ছড়িয়ে পড়ার সন্ধান পেয়েছে।

গত মাসে ‘Muslim Advocates’ নামের আরেকটি সংস্থার জরিপে জানা যায় যে, বর্তমানে ক্ষমতায় থাকা যুক্তরাষ্ট্রের রাজনীতিবিদদের মধ্যে অন্তত ৮০ শতাংশ পরিষ্কারভাবেই ইসলামভীতিতে আক্রান্ত।

এমনকি যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প তার নির্বাচনী প্রচারণায় ইসলাম বিরোধী মনোভাবের পরিচয় দিয়েছেন এবং তিনি শুধুমাত্র মুসলিমদের উদ্দেশ্য করে কিছু নির্বাহী আদেশ জারি করেছেন। বেশ কয়কটি দেশের মুসলিম নাগরিকদের উপর যুক্তরাষ্ট্রে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা জারি তার মধ্যে অন্যতম।

‘Council on American-Islamic Relations (CAIR)’ এর সদস্য জাইনাব আরাইন বলেন,‘যুক্তরাষ্ট্রে এমন লোকজন রয়েছেন যারা ট্রাম্প প্রশাসনের সদস্য এবং তারা নিশ্চিতভাবেই মুসলিম বিরোধী মনোভাবের।’

গত সপ্তাহজুড়ে যুক্তরাষ্ট্রে অতি ডান পন্থীরা বেশ কিছু আক্রমণের ঘটনা ঘটিয়েছে। এর মধ্যে অন্যতম হচ্ছে- ট্রাম্প বিরোধী রাজনৈতিক এবং গণমাধ্যমগুলোর কাছে বেনামে পাইপ-বোম্ব পাঠানো, কেন্টাকিতে দুজন আফ্রিকান-আমেরিকানের উপর বর্ণবাদী হামলা এবং পিটার্সবার্গে একটি উপাসনালয়ে হামলা চালিয়ে ১১ জন ইহুদিকে হত্যা করা ইত্যাদি।

‘Greater Washington Muslim-Jewish Forum’ এর সদস্য ওয়াল্টার রুবির মতে, মুসলিম বিরোধী ধর্মান্ধতা এবং ইহুদি বিরোধী মনোভাব দুটোই অনন্য একটি বিষয় এবং এগুলো চরিত্রগত দিক থেকে একই সূত্রে গাঁথা।

তিনি বলেন, ‘অনেকেই এরকম আছেন যে, তারা একই সাথে মুসলিম এবং ইহুদিদের ঘৃণা করেন।’

‘আমি মনে করি এধরনের মনোভাবের পুরোপুরিই প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এবং অন্যান্যদের উৎসাহে ঘটে চলেছে।’

‘তবে আমি শুধুমাত্র ট্রাম্পকেই দায়ী করতে চাই না কিন্তু তারা ঘৃণা ছড়ানো আন্দোলন তার আশেপাশজুড়ে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে, যা এধরনের কাজ ঘটাতে সাহায্য করছে।’

‘বর্তমানে আমরা খুব ভীতিকর পরিস্থিতিতে দিন কাটাচ্ছি।’

সূত্রঃ আল-জাজিরায় প্রকাশিত ‘New America Foundation and American Muslim Institution’ কর্তৃক পরিচালিত গবেষণা প্রতিবেদন থেকে।


©2014 - 2018. RajshahiNews24.Com . All rights reserved.
Design & Developed BY ThemesBazar.Com