মঙ্গলবার, ১৮ ডিসেম্বর ২০১৮, ০৬:১০ অপরাহ্ন

সম্ভাবনাময় তথ্য প্রযুক্তি খাত: আধুনিক যোগাযোগ পদ্ধতির হাতিয়ার সাবমেরিন ক্যাবল

সম্ভাবনাময় তথ্য প্রযুক্তি খাত: আধুনিক যোগাযোগ পদ্ধতির হাতিয়ার সাবমেরিন ক্যাবল

অপার সম্ভাবনার দেশ বাংলাদেশ। এ দেশের উন্নয়নে সবচেয়ে বড় হাতিয়ার বিপুল জনশক্তি। বিশ্বব্যাপী প্রযুক্তির যে প্রবল বিস্তার ঘটেছে, এর ইতিবাচক প্রভাব পড়েছে বাংলাদেশেও। তরুণ প্রজন্মের কল্যাণে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক ও সামাজিক উন্নয়নে এখন অপার সম্ভাবনার খাত হয়ে উঠেছে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি। সরকারি ও বেসরকারিভাবে নানা উদ্যোগ এবং এ খাতের বিকাশে অবকাঠামোগত উন্নয়নের কারণে মাত্র কয়েক বছরের মধ্যেই তথ্যপ্রযুক্তি হয়ে উঠেছে দেশের অন্যতম প্রতিষ্ঠিত খাত।

তথ্য প্রযুক্তির এই অগ্রগতির জন্য জাতিসংঘের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি ) বিষয়ে বিশেষায়িত সংস্থা আইটিইউ এর ২০১৭ সালের আইসিটি উন্নয়ন সূচকে বাংলাদশের অবস্থান তালিকাভুক্ত ১৭৫টি দেশের ভেতর ১৪৭তম। তথ্য প্রযুক্তির উপর ভর করে এই দেশের মানুষের নাগরিক সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধি করা হয়েছে। দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলেও এখন পৌঁছে গেছে ডিজিটাল ব্যাংকিং সুবিধা। পল্লী গ্রামের জনসাধারণ বর্তমানে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে নিরাপদে অর্থ বিনিময় করতে পারছেন এমনকি ভবিষ্যতের জন্য টাকাও জমা করতে পারছেন এই মোবাইল ব্যাংকিংয়ের সাহায্যে। গ্রামের জনসাধারণকে সময়, অর্থ ব্যয় করে এখন আর সদরে গিয়ে অর্থ আদানপ্রদান করতে হয় না। হাতের মুঠোয় তাদের আছে মোবাইল ব্যাংকিং। এসব সম্ভব হয়েছে দেশের তথ্যপ্রযুক্তির অগ্রযাত্রার জন্য আর এই অগ্রযাত্রাকে ত্বরান্বিত করেছে অত্যাধুনিক সাবমেরিন ক্যাবল।

সাগরতল দিয়ে একদেশ দেশ থেকে আরেক দেশ কিংবা এক মহাদেশ থেকে আরেক মহাদেশে পর্যন্ত যে বিস্তৃত অত্যন্ত দ্রুতগতি সম্পন্ন যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়ে তোলা হয়েছে তা সাবমেরিন ক্যাবল নামে পরিচিত। মূলত সাগরতল বা সাবমেরিন থেকেই এই ক্যাবলটির নামকরণ হয়েছে ৷ দেশে প্রথম সাবমেরিন ক্যাবল ‘সি-মি-উই –ফোর’ স্থাপন করা হয়। তখন যার ব্যান্ড উইথ ছিল মাত্র ৩০০ গিগাবাইট। তথ্য প্রযুক্তি সম্প্রসারণের জন্য বাংলাদেশ সাবমেরিন কেবল কোম্পানি লিমিটেড সরকারের উদ্যোগে দেশের সাবমেরিন ক্যাবলের উন্নত করার পদক্ষেপ গ্রহণ করে। এর মাধ্যমে ২০১৭ সালে ১০ সেপ্টেম্বরে ‘সি-মি-উই-ফাইভ’ স্থাপন করা হয় যার ব্যান্ডউইথ ১৫০০ গিগাবাইট। পটুয়াখালীর কুয়াকাটা থেকে কোনো ‘সি-মি-উই-ফাইভ’ চালু করা হয়। প্রথম সাবমেরিন ক্যাবল কোনো কারণে খারাপ হলে বা যান্ত্রিক কোনো ত্রুটির কারণে সমস্যা দেখা দিলে তখন দ্বিতীয় সাবমেরিন ক্যাবলটি বিকল্প হিসেবে কাজ করবে। এই সাবমেরিন ক্যাবলের জন্য দেশের ইন্টারনেট সংযোগ আরো বিস্তৃত করা হয়।

বর্তমানে দেশের এক হাজারটি ইউনিয়ন পরিষদে অপটিক্যাল ফাইবার স্থাপন করা হয়েছে। দেশের ৬৪টি জেলায় ১১৪টি উপজেলা থেকে ১১০৪টি ইউনিয়নে প্রায় আট হাজার কিলোমিটার অপটিক্যাল ফাইবার ক্যাবল স্থাপন করা হয়েছে। এর ফলে ইউনিয়ন পর্যায়ে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট সুবিধা সম্প্রসারিত হয়েছে। সাবমেরিন ক্যাবলের ব্যান্ডউইথ বহনের জন্য ঢাকা ও কক্সবাজারের মধ্যে বিটিসিএল ও পাওয়ার গ্রিড কোম্পানি লিমিটেড অপটিক্যাল ফাইবার ব্যবহারের মাধ্যমে বিদ্যমান ৩০০ জিবিপিএস ক্ষমতার বর্তমান অপটিক্যাল ফাইবার ট্রান্সমিশন লিংককে এক হাজার ৮০০ জিবিপিএস ক্ষমতায় রূপান্তর করা হয়েছে। এর ফলে বর্তমানে দেশে ইন্টারনেট ব্যবহার আগের থেকে হয়েছে আরো বেশি দ্রুত গতি সম্পন্ন।

দেশের জনগণের জীবনমান উন্নয়নের মাধ্যমে দেশের সার্বিক উন্নয়ন করা বর্তমান সরকারের মূল উদ্দেশ্য। এজন্যই দেশের বাজেট প্রণয়ন করা হয় জনগণের উন্নয়ন বান্ধব সম্মত এবং বাজেটের অর্থ যথাযথ ভাবে উন্নয়নের কাজে ব্যবহারের মাধ্যমে দেশ এগোচ্ছে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে। দেশের কর্ণধারদের সার্বিক তত্ত্বাবধানে বাংলাদেশ পৃথিবীর মানচিত্রে হবে অনন্য একটি দেশ, এমনটাই মনে করছেন সংশ্লিষ্ট সকলেই।


©2014 - 2018. RajshahiNews24.Com . All rights reserved.
Design & Developed BY ThemesBazar.Com