২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, বৃহস্পতিবার, ১১:০৩:২২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
রাজধানীর ঝিলপাড় বস্তিতে আগুন আকাশে শাবান মাসের চাঁদ, ২৫ ফেব্রুয়ারি শবেবরাত রাজশাহীতে তিন সহযোগিসহ ধর্ষ’ক গ্রেপ্তার মা-বাবাকে আর বৃদ্ধাশ্রমে দিতে হবে না: সমাজকল্যাণ মন্ত্রী ফসলি জমির মাটি উত্তোলন, ২ ব্যক্তির ১৫ দিনের কারাদণ্ড,৫০ হাজার টাকা জরিমানা চাটখিল থানার পাশেই, টেক্সটাইলের রং ও ক্যামিকেল দিয়ে তৈরী হচ্ছে জন্মদিনের কেক,নিরব ভুমিকায় উপজেলা প্রশাসন! কমলগঞ্জে রাইস ট্রান্সপ্লান্টারের মাধ্যমে ধানের চারা রোপণ মৌলভীবাজার হাফিজা খাতুন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগীতা ও পুরস্কার বিতরণ জীববৈচিত্র্য ফিরে পাচ্ছে শেরপুরের গারো পাহাড় প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ
মিষ্টি খেতে তিন লাখ টাকা দাবি পুলিশ কর্মকর্তার!
নিজস্ব প্রতিবেদক :
  • আপডেট করা হয়েছে : ২৩-০৭-২০২৩
মিষ্টি খেতে তিন লাখ টাকা দাবি পুলিশ কর্মকর্তার! ফাইল ফটো।

মিষ্টি খাওয়ার নামে তিন লাখ টাকা চাঁদা চাওয়ার অভিযোগে হাতিরঝিল থানার এসআই জাহিদ হাসানসহ তিন ব্যক্তির বিরুদ্ধে আদালতে মামলা হয়েছে।

রোববার (২৩ জুলাই) আজাদ মাহমুদ নামে এক ব্যক্তি ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে এ মামলার আবেদন করেন।

বিচারক আশেক ইমাম বাদীর জবানবন্দি গ্রহণ করে আদেশ পরে দেন। এরপর আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে পিবিআইকে অভিযোগের বিষয়ে তদন্ত করে আগামী ২৮ আগস্ট প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেন।

বাদীপক্ষের আইনজীবী এম কাওসার আহমেদ সংবাদমাধ্যমকে বলেন, আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে অভিযোগের বিষয়ে তদন্ত করে আগামী ২৮ অগাস্টের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে পিবিআইকে নির্দেশ দিয়েছে।

মামলার অপর দুই আসামি হলেন- বাদী আজাদের সাবেক প্রেমিকা আয়শা রুবি ও তার স্বামী জসিম উদ্দিন রায়াত।

মামলার আর্জিতে বলা হয়, আজাদের সঙ্গে রুবির দীর্ঘদিনের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। রুবি পরে রায়াতকে বিয়ে করলে সম্পর্ক শেষ হয়। তবে তাদের ঘনিষ্ঠ কিছু ছবি রুবির কাছে ছিল। রুবি ও রায়াত এসব ছবির কথা বলে আজাদকে হুমকি-ধামকি দিতেন।

আজাদ তাদের সঙ্গে যোগাযোগ বন্ধ করে দিলে তারা তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় অভিযোগ ও জিডি করেন। পরে আপসের মাধ্যমে তা প্রত্যাহার করে নেওয়া হয় বলে মামলার আর্জিতে জানিয়েছেন বাদী।

মামলায় বাদী অভিযোগ করেন, আজাদের সঙ্গে রুবির দীর্ঘদিনের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। পরবর্তীতে রুবি রায়াতকে বিয়ে করলে এই সম্পর্ক শেষ হয়। তবে তাদের ঘনিষ্ঠ কিছু ছবি রুবির কাছে ছিল। রুবি ও রায়াত এগুলো দিয়ে আজাদকে হুমকি ধামকি দিতো। পরে আজাদ তাদের সঙ্গে যোগাযোগ বন্ধ করে দেন। তারা আজাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় অভিযোগ ও জিডি করেন। পরে আপসের মাধ্যমে তা প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়।

গত ১০ জুলাই রুবির শ্বাশুড়ি স্ট্রোক করেছেন বলে আজাদকে জানান রুবি ও রায়াত। তারা আজাদের সাহায্য চান। আজাদ রাত সাড়ে ৯টার দিকে রায়াতের সঙ্গে মগবাজারের একটি রেস্টুরেন্টে দেখা করেন। সেখানে গেলে এসআই জাহিদ তাকে হাতিরঝিল থানায় নিয়ে যান। পরে আজাদের আত্মীয়দের ফোন করে টাকা পয়সা নিয়ে আসতে বলেন জাহিদ। রুবি ও রায়াতের ফোন থেকে এসআই জাহিদ একাধিক বার ফোন করে চাঁদা দাবি করেন।

মামলায় আরও অভিযোগ করা হয়, আজাদকে হত্যা মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে পাঠিয়ে জোর করে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিতে বাধ্য করবে বলেও ভয় দেখান এসআই জাহিদ। অন্যথায় তাকে ও ওসিকে (হাতিরঝিল) ‘মিষ্টি খেতে’ ৩ লাখ টাকা চাঁদা দিতে বলেন। আজাদের এক আত্মীয় থানায় গেলে তাকে এক লাখ টাকা দিতে বাধ্য করেন জাহিদ। ওই টাকার মধ্যে আজাদের মানিব্যাগে থাকা ২০ হাজার টাকা নিয়ে নেন এসআই জাহিদ। বাকি ৮০ হাজার টাকা এটিএম কার্ডের মাধ্যমে তুলে আনতে বাধ্য করেন। এখন এই তিন আসামি তাকে দুই লাখ টাকা দিতে চাপ দিয়ে যাচ্ছেন। অন্যথায় তাকে মামলা দেওয়ার ভয়ভীতি দিচ্ছেন তারা।

এ বিষয়ে হাতিরঝিল থানার ওসি আওলাদ হোসেন সংবাদমাধ্যমকে বলেন, বিষয়টি তিনি জানেন না। থানায় গিয়ে কথা বলে জেনে জানাতে পারবেন।

শেয়ার করুন