০৯ অগাস্ট ২০২২, মঙ্গলবার, ১০:০৫:২৫ অপরাহ্ন
জলবায়ু পরিবর্তনের চরম ঝুঁকিতে শিশুরা : গবেষণা
  • আপডেট করা হয়েছে : ১৯-০৬-২০২২
জলবায়ু পরিবর্তনের চরম ঝুঁকিতে শিশুরা : গবেষণা

অ্যারন বার্নস্টাইন প্রায় ২৫ বছর আগে যখন একজন শিশুরোগ বিশেষজ্ঞ হিসেবে কাজ শুরু করলেন, তখনও তার মনে হয়নি, জলবায়ু সংকট শিশুদের জন্য এমন গুরুতর স্বাস্থ্য সমস্যার কারণ হয়ে উঠতে যাচ্ছে। পেশাগত জীবনে সময় যত গড়াতে থাকল, তিনি দেখতে লাগলেন, তীব্র গরমে অসুস্থ হয়ে প্রতি বছর আরো বেশি শিশু হাসপাতালের জরুরি বিভাগে আসছে চিকিৎসা নিতে। এমনকি জলবায়ু সংকট কারও কারও ক্ষেত্রে মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যারও কারণ ঘটাচ্ছে। 


হার্ভার্ডের বিশেষজ্ঞ বার্নস্টাইন বলেন, “সে সময় প্রায়ই কেউ জলবায়ু পরিবর্তনকে স্বাস্থ্য সমস্যা হিসেবে মনে করেনি। বিষয়টি আগে খেয়াল না করার জন্য নিজেকেই বোকা বোকা লাগে।” তার মতে, মানুষ এই সংকটের যে জায়গায় এখন দাঁড়িয়ে আছে, তার চেয়েও ভালো অবস্থায় থাকা সম্ভব ছিল সময়মতো বিষয়টিতে গুরুত্ব দেওয়া হলে। নিউ ইংল্যান্ড জার্নাল অব মেডিসিন হালনাগাদ তথ্য নিয়ে একটি গবেষণার বিস্তৃত পর্যালোচনা প্রকাশ করেছে। সেখানে বলা হয়েছে, জীবাশ্ম জ্বালানি পোড়ানোর প্রভাব... বায়ু দূষণ ও মারাত্মক আবহাওয়ার মতো বিষয়গুলো, পানির নিম্ন মান, চরম তাপ... শিশু স্বাস্থ্যের জন্য ব্যাপক ও ক্রমবর্ধমান ঝুঁকি তৈরি করেছে। এই জার্নালকে সব মেডিক্যাল জার্নালের ‘পবিত্র আধার’ বলে থাকেন হার্ভার্ড টিএইচ চ্যান স্কুল অব পাবলিক হেলথের সেন্টার ফর ক্লাইমেট, হেলথ অ্যান্ড গ্লোবাল এনভায়রনমেন্টের অন্তর্বর্তীকালীন পরিচালক বার্নস্টাইন।



গবেষণা প্রতিবেদনের প্রধান লেখক কলাম্বিয়া সেন্টার ফর চিলড্রেনস এনভায়রনমেন্ট হেলথের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক ফ্রেডেরিকা পেরেরা বলেন, “জীবাশ্ম জ্বালানিতে এই গ্রহের অত্যধিক নির্ভরতা ও শিশু স্বাস্থ্যের মধ্যে যোগসূত্র দেখানোই কেবল গবেষণার উদ্দেশ্য ছিল না, বিশ্বের সবচেয়ে কমবয়সিদের জলবায়ু পরিবর্তনজনিত বিপর্যয় থেকে সমাধানের উপায়গুলোও তুলে ধরাও এর লক্ষ্য ছিল।” তিনি বলেন, “আমরা এই জলবায়ু পÌভাবের সম্পূর্ণ পরিসরটি দেখেছি, যা শিশুদের জরুরি বিভাগে পাঠাচ্ছে এবং সেই তালিকা বড় হচ্ছে। তাই আমি সবকিছু (পর্যালোচনায়) একসঙ্গে রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। তিনি বলেন, ‘একদিক থেকে এটি একটি খারাপ খবর; কিন্তু দেখুন, কীভাবে এর প্রভাব মোকাবিলা করা যায়, তা আমরা জানি। আমরা জানি, কীভাবে (কার্বন গ্যাস) নির্গমন কমিয়ে আনা যায়। আমরা এখনই ব্যবস্থা নিতে পারি এবং এটাই ছিল নিবন্ধের উদ্দেশ্য।’


গবেষণা নিবন্ধে বন্যার পাশাপাশি বায়ু দূষণসহ বেশ কয়েকটি চরম জলবায়ু পরিবর্তনজনিত ঘটনার রূপরেখা দেওয়া হয়েছে। গবেষকরা বলছেন, যুক্তরাষ্ট্রে সমস্ত প্রাকৃতিক দুর্যোগের মধ্যে সবচেয়ে মারাত্মক হলো উচ্চ তাপমাত্রা। ফ্রেডেরিকা পেরেরা বলেন, অভিভাবক ও প্রাপ্তবয়স্করা তাপমাত্রা বেড়ে গেলে নিজেদের শরীর বাঁচানোর কাজটা বাচ্চাদের চেয়ে ভালোভাবে সামলাতে পারেন। তারা হয়ত গরমের কারণে কিছু সমস্যা বা অসুস্থতার উপসর্গ সহজে উপেক্ষা করতে পারেন, কিন্তু বাচ্চারা তা পারে না, তাদের ভুগতে হয়।

শেয়ার করুন