১৮ অগাস্ট ২০২২, বৃহস্পতিবার, ০৫:৩১:২৭ অপরাহ্ন
শেখ হাসিনার প্রশংসা করে পাকিস্তানের পত্রিকায় পদ্মা সেতু
  • আপডেট করা হয়েছে : ০২-০৬-২০২২
শেখ হাসিনার প্রশংসা করে পাকিস্তানের পত্রিকায় পদ্মা সেতু

দীর্ঘদিনের লালিত স্বপ্ন বাস্তবায়নের দ্বারপ্রান্তে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের মানুষ। ক্ষণগণনা শুরু হয়ে গেছে বাঙালির গর্বের পদ্মা সেতুর। সবাই অপেক্ষায় ২৫ জুনের। এর মধ্যে বুধবার (০২ জুন) পাকিস্তানের সর্বাধিক প্রচারিত ‘ডেইলি টাইমস’ পত্রিকায় শেখ হাসিনার প্রশংসা করে পদ্মা সেতুর গল্প নিয়ে এক নিবন্ধ প্রকাশ হয়েছে।

পাকিস্তানের আন্তর্জাতিক বিষয়ক বিশ্লেষক ড. মালিকা-ই-আবিদা খাত্তাক তার নিবন্ধে উল্লেখ করেন, ২৫ জুন পদ্মা সেতু চালুর মধ্য দিয়ে বদলে যাবে দক্ষিণাঞ্চলের আর্থ সামাজিক অবস্থা। উন্নত হবে যাতায়াত ও পর্যটন খাত। সমৃদ্ধ হবে ব্যবসা, কৃষি ও শিল্পখাত। দক্ষিণাঞ্চলের লাখো মানুষের স্বপ্নের পদ্মা সেতু উদ্বোধন হলে মানুষের যাতায়াতের দুর্ভোগের অবসান হবে।

ড. মালিকা বলেন, ‘দেশের উন্নয়নের মূর্তিমান প্রতীক প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পদ্মা সেতুর মতো বিশ্বে দৃষ্টান্ত স্থাপন করে আত্মবিশ্বাস ও দূরদর্শিতার পরিচয় দিয়েছেন। বিশাল প্রতিবন্ধকতার পথে তাকে হাঁটতে হয়েছে কিন্তু তিনি তার গন্তব্যে ঠিকই পৌঁছেছেন। সেতুর নির্মাণের সময় যে ষড়যন্ত্র ছড়িয়ে পড়েছিল তিনি তা দৃঢতার সঙ্গে মোকাবিলা করে সত্য প্রতিষ্ঠা করেছেন।’

পদ্মা সেতু শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্বের স্বাক্ষর বহন করে উল্লেখ করে ড. মালিকা বলেন, ‘শেখ হাসিনার শাসনামলে বাংলাদেশের সক্ষমতা আরও একবার জানার সুযোগ পেল বিশ্ব। বাংলাদেশ এমন একটি দেশ যারা বারবার তাদের সক্ষমতা দেখিয়েছে।’

পদ্মা সেতু নিয়ে বিশ্ব ব্যাংক দুর্নীতির মিথ্যা অভিযোগে প্রতিশ্রুতি প্রত্যাহার করে এবং অন্যান্য দাতারা তা অনুসরণ করে। পদ্মা সেতুর ভবিষ্যৎ হুমকির মুখে এবং পদ্মা সেতুর নির্মাণ কাজ অনিশ্চিত হয়ে পড়ে। বিশ্বব্যাংক ও দাতারা মুখ ফিরিয়ে নেয়। তখন সমালোচকরা হাসতে হাসতে ফেটে পড়েন। শেখ হাসিনার পক্ষে পদ্মা সেতু করা সম্ভব হবে না বলে বিরূপ মন্তব্যের ঝড় তুলেছিল ষড়যন্ত্রকারীরা।

বিশ্বব্যাংক একটি মিথ্যা দুর্নীতির অভিযোগ এনে এক ব্যক্তির যোগসাজশে বোর্ড সভা না করে সেতু নির্মাণে অর্থায়ন বন্ধ করে দেয়, যা পরবর্তীকালে ভিত্তিহীন প্রমাণ হয়। পদ্মা সেতুতে ঘুষ কেলেংকারির কোনো প্রমাণ পায়নি কানাডার আদালত।

তৎকালীন যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেনকে মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগ করতে হয়। এটি ছিল পদ্মা সেতু নির্মাণের শুরুর চিত্র। কিন্তু নির্মাণ কাজ শুরু হওয়ার পর বড় চ্যালেঞ্জের মুখে পড়ে সরকার। নদী শাসন এবং পাইলিংয়ের ক্ষেত্রে সাহসী এবং যুগান্তকারী প্রকৌশল দক্ষতা প্রয়োজন ছিল। একই সময়ে নির্মাণ ব্যয় বাড়তে থাকে।

ড. মালিকা আরও বলেন, করোনার প্রাদুর্ভাব শুরু হলেও সেতুটির নির্মাণ কাজ পুরোদমে চলছিল। শেখ হাসিনার অদম্য ইচ্ছা শক্তির কারণে সেতুর কাজ একদিনের জন্যও বন্ধ হয়নি। করোনা মোকাবিলায় পদ্মা সেতুর কাজ এগিয়েছে। সবাই যখন দেখল, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সেতুর কাজ এগিয়ে যাচ্ছে তখন কিছু অসাধু ও ষড়যন্ত্রকারী গুজব ছড়াতে থাকে। গুজব ছড়ানো হয়েছিল যে সেতু তৈরি করতে মানুষের মাথা লাগবে। সরকারও দক্ষতার সঙ্গে তা মোকাবিলা করেছে। শেখ হাসিনার অদম্য ইচ্ছা শক্তিতে শুধু পদ্মা সেতুই নয়, মেট্রোরেল ও দেশের বৃহত্তম টানেলের কাজও প্রায় শেষের দিকে। সেগুলো এ বছর জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করা হবে। একই সঙ্গে অনেক মেগা প্রকল্পের কাজ চলছে।

রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র, মাতারবাড়ি প্রকল্প, যমুনা নদীর ওপর বঙ্গবন্ধু রেল সেতু নির্মাণ, পায়রা সমুদ্র বন্দর নির্মাণ, বঙ্গবন্ধু শিল্প নগরী নির্মাণসহ অনেক প্রকল্প উল্লেখযোগ্য। তবে পদ্মা সেতু নির্মাণ ছিল সবচেয়ে চ্যালেঞ্জিং। পদ্মা সেতু শুধু একটি সেতু নয়, এটা দেশের একটি বড় সম্পদ। পদ্মা সেতু বাংলাদেশের পদ্মা নদীর ওপর নির্মিত একটি বহুমুখী সড়ক ও রেল সেতু। দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল উত্তর-পূর্ব অংশের সঙ্গে যুক্ত হবে। ৬.১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ এবং ১৮.১০ মিটার চওড়া সেতুটির নির্মাণ কাজ ২০১৪ সালের ৭ ডিসেম্বর শুরু হয়।

গর্বের সেতু আজ দাঁড়িয়ে আছে। নিজস্ব অর্থে পদ্মা সেতু নির্মাণের ফলে সারা বিশ্বে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক সম্ভাবনা ও ভাবমূর্তি প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর একটি সাহসী সিদ্ধান্ত তাকে একজন আত্মবিশ্বাসী, দৃঢ়প্রতিজ্ঞ সফল রাষ্ট্রনায়ক হিসেবে আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃতি দেয়া হয়েছে। অর্থনৈতিক অগ্রগতি, ক্রমাগত জিডিপি প্রবৃদ্ধি এবং বিভিন্ন সামাজিক সূচকে বাংলাদেশের অবস্থানের উন্নতি আজ আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত। এই সেতুর জন্য প্রধানমন্ত্রী যে ত্যাগ স্বীকার করেছেন, পদ্মা সেতু প্রকল্প বাস্তবায়নের সাফল্য সেই ত্যাগকে যৌক্তিক প্রমাণ করেছে।

সেতুটি রাজনীতি, অর্থনীতি, সংস্কৃতি এবং সামাজিক ঘটনার সঙ্গে গভীরভাবে জড়িত। সেতুটি নির্মাণ বাংলাদেশের জন্য একটি বড় রাজনৈতিক চ্যালেঞ্জ ছিল। সেতুটি চালু হলে দেশের অর্থনীতি চাঙা হবে। দেশের অর্থনীতির কাঠামো বদলে যাবে। কৃষির ব্যাপক উন্নয়ন হবে। সেতুটি দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল থেকে রাজধানীতে কৃষিপণ্য পরিবহনে একটি যুগান্তকারী অধ্যায় তৈরি করবে। কৃষকরা তাদের উৎপাদিত পণ্যের ভালো দাম পাবে। পদ্মা সেতুকে কেন্দ্র করে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে ব্যাপক শিল্পায়ন ঘটবে।

পদ্মা সেতু হয়ে উঠতে পারে চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের একটি অংশ। যোগাযোগ ও পরিবহন ক্ষেত্রে বিপ্লব ঘটবে। সেতুটির মাধ্যমে পর্যটন শিল্পের উন্নয়ন হবে। সেতুটির দেশের মুন্সীগঞ্জ ও শরীয়তপুর সেকশনে একটি ৬ লেনের এক্সপ্রেসওয়ে নির্মাণ করা হয়েছে যা খুবই নজরকাড়া ও চিত্তাকর্ষক।

সংস্কৃতির ক্ষেত্রে অনন্য ভূমিকা রাখবে এই সেতু। এই সেতুর চারপাশে গড়ে তোলা হবে রিসোর্ট, হোটেল ও রেস্তোরাঁ। যেখানে বাঙালি খাবার পরিবেশন করা হবে, যা বিদেশিদের কাছে বাঙালি সংস্কৃতিকে আরও পরিচিত করে তুলবে। পদ্মা সেতু দেশের জিডিপি বাড়াবে এবং মাথাপিছু আয় ও বাড়াবে। এই সেতু দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সঙ্গে রেল যোগাযোগ আরও মজবুত করবে। মানুষ ঢাকা থেকে স্বল্প সময়ে স্বাচ্ছন্দ্যে যাতায়াত করতে পারবে।

সেতুকে ঘিরে গড়ে উঠবে বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান এবং দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের মানুষের জীবনযাত্রার মান বহুগুণ বেড়ে যাবে। পদ্মা সেতুর নাম উচ্চারণ করলে শেখ হাসিনার নাম উচ্চারণ করতে হবে। শেখ হাসিনার নাম এবং পদ্মা সেতু একে অপরের পরিপূরক। তাদের আলাদা করার কোনো সুযোগ নেই। পদ্মা সেতুর নাম শেখ হাসিনার নামে না হলেও প্রজন্ম থেকে প্রজন্ম জানবে শেখ হাসিনার কারণেই এ সেতু সম্ভব হয়েছে।

শেখ হাসিনা পদ্মা সেতু নির্মাণের বড় চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করে জয়ী হয়েছেন। বাংলাদেশ ইতোমধ্যে উন্নয়নশীল দেশে পরিণত হয়েছে। পদ্মা সেতু দেশকে দ্রুত নিয়ে যাবে। বাংলাদেশকে উন্নত দেশের কাতারে নিয়ে যেতে এই সেতু অনন্য ভূমিকা রাখবে।

বহুল প্রতীক্ষিত পদ্মা বহুমুখী সেতু নির্মাণের সিদ্ধান্ত সঠিক ছিল, যা আগামী ২৫ জুন যান চলাচলের জন্য উন্মুক্ত করার মাধ্যমে প্রমাণ হবে। বিশ্বে দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করেছে এবং জাতির আস্থাকেও ত্বরান্বিত করেছে। নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণের সিদ্ধান্ত বিশ্বে দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল হয়েছে এবং জাতির আস্থাকেও ত্বরান্বিত করেছে।

শেয়ার করুন