১৯ অগাস্ট ২০২২, শুক্রবার, ১০:৪০:৩০ পূর্বাহ্ন
ফুটপাত দখলমুক্ত করতে অভিযান
  • আপডেট করা হয়েছে : ৩০-০৫-২০২২
ফুটপাত দখলমুক্ত করতে অভিযান

টাঙ্গাইলের মধুপুর পৌর শহরের ফুটপাত দখলমুক্ত করতে অভিযান চালিয়েছে উপজেলা প্রশাসন। সোমবার বেলা ১১টা থেকে বিকাল পর্যন্ত উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শামীমা ইয়াসমীন ও উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) জাকির হোসাইনের নেতৃত্বে এ অভিযান পরিচালিত হয়। 

অভিযান চলাকালীন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও ইউএনও শামীমা ইয়াসমীন একাধিক ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে ফুটপাতে নির্মাণ সামগ্রী রেখে নির্মাণ কাজ চালিয়ে জনদুর্ভোগ সৃষ্টির দায়ে সংশ্লিষ্ট আইনে তিন ব্যক্তিকে ৬ হাজার টাকা  জরিমানা করেন।

টাঙ্গাইল রোডের মধুপুর থানার মোড় থেকে বাসস্ট্যান্ড আনারস চত্বর হয়ে ময়মনসিংহ রোডের নতুন বাজার পর্যন্ত এবং জামালপুর রোডের হাসপাতাল পর্যন্ত এ অভিযান পরিচালিত হয়েছে। বাসস্ট্যান্ড এলাকা থেকে বিভিন্ন শ্রমিক সংগঠনের অফিসের নামে দখল হওয়া জায়গামুক্ত করতে সংগঠনের সাইনবোর্ড খোলে ফেলতে দেখা গেছে। 

অপরদিকে অভিযানের কিছুক্ষণ পরই অনেককে আগের অবস্থানে ফিরে এসে দোকানের পসরা সাজাতে ব্যস্ত দেখা গেছে। মধুপুর পৌর শহরের বিশিষ্ট নাগরিক বিল্লাল হোসেন ফকির, ব্যবসায়ী এরশাদ হোসেনসহ অনেকে বিষয়টি নিয়ে প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন।

গত বছর ১৬ মার্চ জেলা প্রসাসক বরাবর ফুটপাত দখলের বিষয়ে লিখিত অভিযোগ দিয়ে ছিলেন জনৈক ইব্রাহিম। তিনি দেরিতে হলেও এমন অভিযানে সন্তোষ্টি প্রকাশ করে জন দুর্ভোগ কমাতে প্রশাসনের নিয়মিত এমন অভিযান দাবি করেন।
 
নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শামীমা ইয়াসমীন জানান, উপজেলার গত কয়েক মাসিক মিটিংয়ে শহরের ফুটপাত দখলের বিষয়টি ধারাবাহিক আলোচিত হয়ে আসছে। দখলের কারণে শহরে জন চলাচলে চরম দুর্ভোগের সৃষ্টি হয়েছে। গত ঈদের আগেই অভিযান চালানোর কথা ছিল। ঈদের আগে ফুটপাতের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের জীবিকায় প্রভাব পড়ার কথা চিন্ত করে বন্ধ রাখা হয়েছিল। 

পরে দখলমুক্ত করার সরেজমিনে ঘোষণা দিয়ে, মাইকিং করে মুক্ত করা যায়নি। তাই অভিযান চালাতে হচ্ছে। প্রয়োজনে এ অভিযান অব্যাহত রাখারও ঘোষণা দেন তিনি। তিন দিনের মধ্যে অনেককে দখল মুক্ত করে দেওয়ার নির্দেশ দিয়ে আসা হয়েছে। অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

শেয়ার করুন