২৯ নভেম্বর ২০২২, মঙ্গলবার, ০৭:৬:০৯ পূর্বাহ্ন
দেশে নতুন আতঙ্ক চোখ ওঠা রোগ, সতর্ক থাকার পরামর্শ
  • আপডেট করা হয়েছে : ০১-১০-২০২২
দেশে নতুন আতঙ্ক চোখ ওঠা রোগ, সতর্ক থাকার পরামর্শ

দেশ নতুন আতঙ্ক ছড়াচ্ছে চোখ ওঠা রোগ বা কনজাংটিভাইটিস ভাইরাস। দ্রুত সংক্রমণশীল এই ভাইরাসে আক্রান্ত হলে পরিবারের অন্য সদস্যদেরও আক্রান্ত হবার ঝুঁকি থাকে।

চোখ ওঠা রোগ হলে আতঙ্কিত না হয়ে আইসোলেশনে থাকার পরামর্শ দিয়েছেন চিকিৎসকরা। বিশেষ সতর্কতা জারি করা হয়েছে বিমানবন্দরগুলোতে।

করোনা আর শিশুদের ফুট এন্ড হ্যান্ড পক্সের পর এবার দেশব্যাপী ছড়িয়ে পড়েছে চোখ ওঠা রোগ বা কনজাং-টিভাইটিস ভাইরাস।

কনজাঙ্কটিভাইটিসের লক্ষণ হলো চোখের নিচের অংশ লাল হয়ে যাওয়া, চোখে ব্যথা বা অস্বস্তি। প্রথমে এক চোখ আক্রান্ত হয়। পরে অন্য চোখে ছড়িয়ে পড়ে। এ রোগে চোখ থেকে পানি পড়তে থাকে। চোখের নিচের অংশ ফুলে ও লাল হয়ে যায়। আলোয় চোখে অস্বস্তি বাড়ে।

ছোঁয়াচে ও অতি সংক্রমণশীল এই ভাইরাসটি খুব ক্ষতিকর নয়। তবে সংক্রমণ ছড়ানোর কারণে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও বিমানবন্দরে মানা হচ্ছে সতর্কতা।

দেশে হঠাৎ করেই বেড়েছে এই চোখের সংক্রমণ। যা সাধারণ ভাবে চোখ ওঠা নামে পরিচিত। এই অবস্থায় আক্রান্তদের বিদেশ ভ্রমণে বিশেষ সতর্কতা জারি করেছে বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ। এতে বেশি আক্রান্ত হচ্ছে শিশুরা। তবে রোগটি এই মৌসুমের নয়। গ্রীষ্মকালীন এই ভাইরাসটি এবার শরতে এসে হানা দিয়েছে।

চক্ষু চিকিৎসকরা জানান, এ নিয়ে আতঙ্কিত হওয়ার তেমন কিছু নেই। এটি এক ধরনের ভাইরাসজনিত রোগ। এক সপ্তাহের মধ্যে তা সেরে যায়।

পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা আর সাধারণ চিকিৎসাতেই এটি সেরে যায়। তবে, রোগটি যেহেতু ছোঁয়াচে তাই রোগীদের বাইরে না যাওয়াই ভালো।

এ রোগটি আক্রান্ত ব্যক্তির সংস্পর্শ থেকে ছড়ায়। রোগীর ব্যবহারের রুমাল, তোয়ালে, বালিশ অন্যরা ব্যবহার করলে এতে আক্রান্ত হয়। এছাড়া এটি বাতাসের মাধ্যমেও ছড়ায়।

আক্রান্ত ব্যক্তিকে সাবান পানি দিয়ে কিছুক্ষণ পর পরই হাত পরিষ্কার করতে হবে। কোন কারণে চোখ ভেজা থাকলে চোখ টিস্যু পেপার দিয়ে মুছে নিতে হবে।

ব্যবহারের পর টিস্যু পেপারটি অবশ্যই ময়লার ঝুড়িতে ফেলে দিতে হবে। এছাড়া চোখ উঠলে কালো চশমা ব্যবহার করা ভালো। এতে চোখে স্পর্শ করা কমবে এবং ধুলাবালি, ধোঁয়া থেকে চোখ রক্ষা পাবে। আলোয় অস্বস্তিও কমবে। এছাড়া চিকিৎসকের পরামর্শে ড্রপ ও ওষুধ ব্যবহার করা যায়।

রোগটি যাতে বিপুল জনগোষ্ঠীর মধ্যে ছড়াতে না পারে সে জন্য সতর্ক থাকার পরামর্শ দিয়েছেন জাতীয় চক্ষু বিজ্ঞান ইন্সটিটিউটের অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ সাইফুল্লাহ।

শেয়ার করুন