২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, সোমবার, ০৩:৫১:২৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
ওআইসি সদস্য দেশগুলোর তথ্যমন্ত্রীদের সম্মেলনে যোগ দিতে তুরস্ক পৌঁছেছেন তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী রাজধানীর ঝিলপাড় বস্তিতে আগুন আকাশে শাবান মাসের চাঁদ, ২৫ ফেব্রুয়ারি শবেবরাত রাজশাহীতে তিন সহযোগিসহ ধর্ষ’ক গ্রেপ্তার মা-বাবাকে আর বৃদ্ধাশ্রমে দিতে হবে না: সমাজকল্যাণ মন্ত্রী ফসলি জমির মাটি উত্তোলন, ২ ব্যক্তির ১৫ দিনের কারাদণ্ড,৫০ হাজার টাকা জরিমানা চাটখিল থানার পাশেই, টেক্সটাইলের রং ও ক্যামিকেল দিয়ে তৈরী হচ্ছে জন্মদিনের কেক,নিরব ভুমিকায় উপজেলা প্রশাসন! কমলগঞ্জে রাইস ট্রান্সপ্লান্টারের মাধ্যমে ধানের চারা রোপণ মৌলভীবাজার হাফিজা খাতুন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগীতা ও পুরস্কার বিতরণ জীববৈচিত্র্য ফিরে পাচ্ছে শেরপুরের গারো পাহাড়
মিরাজের রাতে কী ঘটেছিল
  • আপডেট করা হয়েছে : ০৮-০২-২০২৪
মিরাজের রাতে কী ঘটেছিল

মিরাজ মহানবী (সা.)-এর জীবনের বড় তাৎপর্যপূর্ণ ঘটনা। এটি তাঁর বিশেষ একটি ভ্রমণ, যা পৃথিবীতে কেবল তাঁকেই আল্লাহ তাআলা দান করেছেন। এই ভ্রমণেই ইসলামের সবচেয়ে বড় ইবাদত নামাজ ফরজ করা হয়। কী ঘটেছিল মিরাজের রাতে, তা সংক্ষেপে এখানে তুলে ধরা হলো। 


জিবরাইল (আ.) মক্কায় মহানবী (সা.)-এর কাছে আসেন এবং তাঁকে মসজিদে হারাম থেকে বিশেষ বাহন বোরাকে করে মসজিদুল আকসায় নিয়ে যান। সেখান থেকে বিশেষ বাহন রফরফে করে শুরু হয় জিবরাইল (আ.) ও মহানবী (সা.)-এর মিরাজ তথা ঊর্ধ্বগমন। রাসুলুল্লাহ (সা.)-কে নিয়ে যাওয়া হয় সাত আসমানের ওপরে। পথে প্রথম আসমানে আদম (আ.), দ্বিতীয় আসমানে ইয়াহইয়া (আ.) ও ঈসা (আ.), তৃতীয় আসমানে ইউসুফ (আ.), চতুর্থ আসমানে ইদরিস (আ.), পঞ্চম আসমানে হারুন (আ.), ষষ্ঠ আসমানে মুসা (আ.) ও সপ্তম আসমানে ইবরাহিম (আ.)-এর সঙ্গে সাক্ষাৎ হয়। সেখানে রাসুল (সা.) সিদরাতুল মুনতাহা, জান্নাত, জাহান্নামসহ আল্লাহ তাআলার অসংখ্য নিদর্শন দেখেন। আল্লাহ বলেন, ‘নিশ্চয়ই সে (মুহাম্মদ) তাকে (জিবরাইলকে) আরেকবার দেখেছিল সিদরাতুল মুনতাহার নিকটে, যার কাছে অবস্থিত বসবাসের জান্নাত।’ (সুরা নাজম: ১৩-১৫) 


এই ভ্রমণের চূড়ান্ত মুহূর্তে রাসুলুল্লাহ (সা.) মহান আল্লাহর দর্শন লাভে ধন্য হন। অসংখ্য হাদিস থেকে বিষয়টি স্পষ্টভাবে প্রমাণিত। আর মিরাজের বড় প্রাপ্তি হলো পাঁচ ওয়াক্ত ফরজ নামাজ। এ ছাড়া সব নবী-রাসুলের মধ্যে রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর শ্রেষ্ঠত্বও এই ঘটনা থেকে প্রমাণিত হয়। কারণ, বিশেষ ব্যবস্থায় আল্লাহ তাআলা মসজিদে আকসায় সব নবী-রাসুলকে সমবেত করেছিলেন। রাসুলুল্লাহ (সা.) তাঁদের সবাইকে নিয়ে নামাজ আদায় করেছেন এবং নামাজে ইমামতি করেছেন। (সিরাতুল মুস্তফা, ১ / ২৯৫-২৯৬)


শেয়ার করুন